বাংলাদেশে আজ করোনায় একদিনের সর্বোচ্চ মৃত্যুবরণ ২৬৪ জন, নতুন আক্রান্ত ১২,৭৪৪ জন

দেশে করোনার বিধিনিষেধের মেয়াদ ১০ আগস্ট পর্যন্ত বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি

 কবির আহমেদ, বাংলাদেশ ডেস্কঃ করোনাভাইরাসের আক্রান্ত হয়ে আবারও মৃত্যুর রেকর্ড হয়েছে। করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে আরও ২৬৪ জন মারা গেছেন। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ২১ হাজার ৯০২ জন। এ সময় ১২ হাজার ৭৪৪ জনের দেহে করোনা শনাক্ত করা হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল ১৩ লাখ ২২ হাজার ৬৫৪ জন।

আজ বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাভাইরাস বিষয়ক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাণ হারানো ২৬৪ জনের মধ্যে পুরুষ ১৪০ জন এবং নারী ১২৪ জন। আর তাদের মধ্যে সরকারি হাসপাতালে ১৯০ জন, বেসরকারি হাসপাতালে ৫৫ জন এবং বাসায় ১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজধানীসহ সারাদেশে ৭০৭টি পরীক্ষাগারে ৪৬ হাজার ৫২২টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এর মধ্যে পরীক্ষা করা হয় ৪৬ হাজার ৯৯৫টি নমুনা। এ নিয়ে দেশে মোট নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা দাঁড়াল ৭৯ লাখ ৯৫ হাজার ৬৭৮টি।

এ সময় সারাদেশে বিভিন্ন হাসপাতাল ও বাড়িতে সুস্থ হওয়া রোগীর সংখ্যা ১৫ হাজার ৭৮৬ জন। এ নিয়ে দেশে সুস্থ হয়েছেন মোট ১১ লাখ ৫৬ হাজার ৯৪৩ জন রোগী।

গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ২৭ দশমিক ১২ শতাংশ। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৫৪ ভাগ এবং শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৮৭ দশমিক ৪৭ ভাগ। আর শনাক্ত বিবেচনায় মৃত্যুর হার এক দশমিক ৬৬ ভাগ।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর জানায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। আর প্রথম করোনা রোগীর মৃত্যু হয় ১৮ মার্চ। দেশে এ পর্যন্ত করোনায় ২১ হাজার ৯০২ জন মানুষ মারা গেছেন। তাদের মধ্যে পুরুষ ১৪ হাজার ৬৮৪ জন (৬৭ দশমিক শূন্য চার ভাগ) ও নারী সাত হাজার ২১৮ জন (৩২ দশমিক ৯৬ ভাগ)।

এদিকে দেশে বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে চলমান কঠোর বিধিনিষেধের মেয়াদ আগামী ১০ আগস্ট পর্যন্ত বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। এতে বলা হয়েছে,দেশে করোনাভাইরানস সংক্রমণ পরিস্থিতি বিবেচনায় চলমান কঠোর বিধিনিষেধ আগামী ১০ আগস্ট রাত ১২টা পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এ সময় সকল ধরণের ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান ও গণপরিবহন বন্ধ থাকবে। তবে শিল্প, কলকারখানা বিধিনিষেধের আওতা বহির্ভূত থাকবে। একইসঙ্গে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে অভ্যন্তরীণ রুটে বিমান চলাচল করবে।

এর আগে গত ৩ আগস্ট করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় বিধিনিষেধের মেয়াদ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভা শেষে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, ‘১০ তারিখ পর্যন্ত বিধিনিষেধ বেড়েছে। সবাইকে ভ্যাকসিনেটেড হতে হবে সেই শর্ত আরোপ করা হয়েছে। অফিস আদালত ১১ তারিখ থেকে খুলবে। এই কয়দিন বাস্তবতা লক্ষ করব। টেস্ট কেইস হিসেবে দুই-চারদিন দেখব। প্রয়োজন হলে জরুরি ভিত্তিতে বসে সিদ্ধান্ত।’

তিনি আরও বলেন, ‘অর্থনীতি সচল রাখাও দায়িত্ব। সেজন্য কিছু শিল্প-কারখানা খোলা হয়েছে। যানবাহন সব চলবে না। রোটেশন অনুযায়ী চলবে। ১০০ গাড়ি থাকলে শ্রমিক নেতারা ঠিক করবে, অল্পসংখ্যক চলবে। সীমিত আকারে গাড়ি চলবে। রেল ১০টার জায়গায় হয়তো ৫টা চলবে।’

 14,624 total views,  1 views today