শতবর্ষে বঙ্গবন্ধু, একটি নক্ষত্রের অভ্যুদয়

সমাচার ডেস্কঃ “তুমি জন্মে ছিলে বলেই জন্মেছে এই দেশ,মুজিব তোমার আরেক নাম স্বাধীন বাংলাদেশ” ১৯২০ সালে মহান স্রষ্টার আশীর্বাদ নিয়ে পদ্মা তনয়া মধুমতির তীরে টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।                                                 

বাংলার ইতিহাসে যিনি অক্ষত ধ্রুব তারার মতন অম্লান গরিমায় ভাস্কর। তিনি পৃথিবীর নির্যাতিত নিপীড়িত অবহেলিত মানুষের বন্ধু। বাঙালির হাজার বছরের ইতিহাসের শ্রেষ্ঠ প্রাণপুরুষ। যার নেতৃত্ব এবং ত্যাগের বিনিময়ে হাজার বছরের দুঃশাসনের নাগপাশ ভেঙ্গে স্বাধীনতার সূর্য বাংলার আকাশে উদিত হয়েছিল। তাই তাকে বলা হয় রাজনীতির কবি। ১৯২০ সাল থেকে ১৯৭৫ সাল তার এক অদ্ভুত জীবন প্রণালী। কখনো ছাত্রনেতা কখনো দেশ কাঁপানো বাঙালি জাতির কান্ডারী।                                                                                                                                                                            শেরে বাংলা, সরোয়ারদী, মাওলানা আবুল কালাম ভাসানী এদের সান্নিধ্যে তার রাজনীতির প্রজ্ঞা হয়ে উঠেছিল আরো বেগবান ও ক্ষুরধার। তারাও হয়তো বুঝতে পেরেছিলেন এই মুজিব তাদের বুকের ভিতর হাজার বছরের লালিত স্বপ্ন স্বাধীনতা একদিন বাংলার মাটিতে বাস্তবায়িত করবে। হয়েছিলও তাই। এই ছোট্ট লিখনীতে তার এই হিমালয় সমান ব্যক্তিত্ব ও জীবন প্রণালী তুলে ধরা সম্ভব নয়। ১৯৭৫ সালের ১৫ ই আগস্ট ঘাতকের গুলি কেড়ে নেয় বাঙালির স্বপ্নদ্রষ্টা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। মৃত্যুর তুচ্ছতা অতিক্রম করে যে মহানায়ক আজ পৃথিবীর নিপীড়িত নির্যাতিত অবহেলিত মানুষের নেতা তাঁরই দেখানো পথে যেন বাঙালি চলতে পারে। অমর অক্ষয় তার স্মৃতি! তিনি কালজয়ী মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব!

 3,191 total views,  1 views today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *