করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় না ফেরার দেশে অধ্যাপক ডা.মঈন উদ্দিন

অন লাইন ডেস্ক থেকে, কবির আহমেদঃ করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিত্সাধীন অবস্থায় ঢাকায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক ডা.মোঃ মঈন উদ্দিনের মৃত্যু বরণ করেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্নি ইলাইহি রাজিউন)                                                                          আজ বুধবার ১৫ই এপ্রিল সকাল ০৭:৫০ মিনিটে ঢাকার কুর্মিটোলা কুয়েত মৈত্রী জেনারেল হাসপাতালে আইসিইউ তে চিকিত্সাধীন থাকা অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি দেশে করোনার প্রাদুর্ভাব শুরুর পরও নিয়মিত সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও নিজস্ব চেম্বারে চিকিত্সা সেবা দিয়ে আসছিলেন। কিন্তু কোনো এক করোনা আক্রান্ত রোগীর সংস্পর্শে নিজেই করোনায় আক্রান্ত হয়ে পড়েন। আক্রান্তের পর প্রথমে তিনি সিলেটের শহীদ শামসুদ্দিন আহমেদ হাসপাতালে এবং পরবর্তীতে ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তরিত হন।                                                                                                                                                                                      সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক, ঢাকা মেডিকেল কলেজের প্রাক্তন ছাত্র ডাঃ মোঃ মঈন উদ্দিন সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিসিন বিভাগের কনসালটেন্ট ছিলেন দীর্ঘদিন। এরপর ২০১৭ সালে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি পেয়ে দক্ষিন সুরমা থেকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজে যোগদান করেন।                                                                                                                সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজের তার এক সহকর্মী ডা. সাঈদ এনাম লিখেন, “আমি গত ডিসেম্বরে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে পদোন্নতি নিয়ে সিলেট ওসমানী মেডিকেলে যোগদান করলে সেখানে নিয়মিত ডা. মঈন ভাইয়ের সঙ্গে দেখা হতো। মানুষ হিসেবে মানুষের মধ্যে অনেক দূর্বলতা থাকে কিন্তু ডা. মঈন ভাইকে আমরা এমন একজন মানুষ হিসেবে দেখেছি জেনেছি যিনি আসলেই আপাদমস্তক একজন ভালো মানুষ এবং একজন ভালো মেডিসিন ও হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ। আর ভালো মানুষ বলেই তিনি করোনা-ক্রান্তিকালে রোগীদের অসহায়ত্বের কথা ভেবে তার চেম্বার খোলা রেখেছিলেন। কিন্ত নিতান্ত দুঃখজনক ভাবে তিনি নিজেই করোনাভাইরাস সংক্রমিত হয়ে যান”।                 

 

ডা. মঈনের ছাত্র, ডা. ইমাম হোসাইন মামুন লেখেন, “ডা. মঈন স্যার আমার দেখা ঠাণ্ডা মাথার মানুষদের একজন। এত মোলায়েম-কোমল গলায় কথা বলতেন! কখনো রাগতেও দেখিনি স্যারকে। করোনা প্রাদুর্ভাব-পরবর্তী সময়েও হাসপাতাল ও চেম্বারে চিকিৎসা দিয়ে গেলেন। সম্মুখ সমরে থেকে আক্রান্ত হলেন। স্যারের হাত দুটো আর কখনো ব্যাসিক লাইফ সাপোর্ট ট্রেনিং প্রোগ্রামে আমাদের সিপিআর দেয়া শেখাবে না। আর কখনো এ হাত এগজামিনেশন শেখাবে না ক্লাসে। স্যার আর কখনো শেখাবেন না জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে কিভাবে সারভাইভ করতে হয়। আর কখনো ওয়ার্ডে সবক দেবেন না, সঠিক উপায়ে ব্লাড প্রেশার মাপা শেখাবেন না। রাউন্ড দিতে গিয়ে সিম্পটম অ্যানালাইসিস করবেন না প্রিয় ছাত্রদের সঙ্গে। করোনা যোদ্ধা ডা. মঈন স্যারকে নিয়ে আমরা অত্যন্ত গর্বিত। আল্লাহ তাকে শহীদ হিসাবে কবুল করুন। তাকে জান্নাতের সর্বোচ্চ মর্যাদা দান করুন। আমিন”।

 5,328 total views,  1 views today