মানবতার মানবিক চেয়ারম্যান-মঞ্জুরুল আলম রাজিব

সাভার সংবাদদাতা মোঃ জীবন হাওলাদার: সাভারে ঘটে গেল গতকাল হৃদয়বিদারক কয়েকটি ঘটনা। সেই সব কটি ঘটনার মানবতার মানবিক দিক থেকে এগিয়ে এসেছেন সাভার উপজেলা চেয়ারম্যান ও সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুরুল আলম রাজিব।                     

প্রথম ঘটনা এক মা তার ক্ষুদার্থ অবুঝ শিশুর খাবার দুধ কেনার জন্য নিজের চুল কেটে বিক্রি করেন। এই ঘটনা সাভার পৌরসভার ব্যাংক কলোনী ছাপড়া মসজিদ এলাকার। ঘটনা জানাজানি হলে তাৎক্ষণিক ছুটে যান সাভার উপজেলা চেয়ারম্যান ও সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুরুল আলম রাজিব। সেই মা ও তার সন্তানের জন্য নিয়ে যায় খাদ্য সামগ্রী ও করে আসে আর্থিক সহায়তা। শুধু তাই নয় এই ভাড়া বাসায় যত ভাড়াটিয়া অসহায় জীবন যাপন করছেন সবার মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন। এবং আশ্বস্ত করে আসেন এগুলো শেষ হলে যেন তাকে জানানো হয়।

 

এই মানবতার চেয়ারম্যান গড়ে তুলেছেন ৫০ সদস্য বিশিষ্ট একটি স্বেচ্ছাসেবী টিম যাদের কাজই হলো অসহায় হতদরিদ্র মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা। ২৪ ঘন্টা খোলা রাখছেন তার ব্যবহৃত দুটি মোবাইল নাম্বার যেখানে ফোন পাওয়া মাত্রই ছুটে যাচ্ছেন এই মানবতার ফেরিওয়ালা। দ্বিতীয় ঘটনা সাভার উপজেলার তালবাগ এলাকায় কবরস্থানের গেটে নারায়নগঞ্জ থেকে নিয়ে আসা করোনা আক্রান্ত সন্দেহে এক বৃদ্ধ মা কে ফেলে গেলেন সন্তানরা। উপজেলা প্রশাসন তাকে উদ্ধার করে স্বাস্থ্য কেন্দ্রে প্রেরণ করে। গতকাল সন্ধার এঘটনা সাভার উপজেলা প্রশাসনের নির্বাহী কর্মকর্তা পারভেজুর রহমান জানার পর উপজেলা চেয়ারম্যানকে সাথে নিয়ে বীরের মতো ছুটে গেলেন বৃদ্ধা মা কে উদ্ধার করার জন্য , পরে তার চিকিৎসা ও নমুনা সংগ্রহ করার জন্য সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে প্রেরণ করেন।

 

এ প্রসঙ্গে সাভার উপজেলা চেয়ারম্যান মন্জুরুল আলম রাজীব বলেন, এই বৃদ্ধা মা ঠিক মতো কথা বলতে পারে না। শুধু দু একটা কথা বলতে পারে , তিনি আরও জানায় যেহেতু উনার পরিবার পরিজন এখানে কেউ নেই , উনার চিকিৎসার ভার উপজেলা চেয়াম্যান হিসেবে আমি নিলাম, করোনায় আক্রান্ত হলেও উনার চিকিৎসা করাবো আর যদি করোনা আক্রান্ত না হন তাহলেও যতদিন চিকিৎসা চলবে ততদিন উনার চিকিৎসাসহ ভরণপোষনের দায়ীত্ব আমি নিলাম। পাশা পাশি এই মায়ের নারায়নগঞ্জের ঠিকানা সংগ্রহ করা হবে বলে তিনি জানান।                 

এরপর শুরু হয়ে যায় বিভিন্ন ফোন কল আসা মানুষের পরিবারের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম। তার স্বেচ্ছাসেবী টিম নিয়ে এ বাড়ি ও বাড়ি ঘুরে ঘুরে চলে বিতরণ কার্যক্রম। মধ্যরাত পর্যন্ত চলে মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিতরণ কার্যক্রম। সবাইকে একটাই মেসেজ দিচ্ছেন পাশে আছি, আমি আপনাদের সন্তান, বিপদে আপদে আপনারা যে রকম আমার পাশে ছিলেন আমিও কথা দিলাম পাশে আছি, থাকবো ইনশাআল্লাহ। ঘরে থাকুন, সুস্থ থাকুন, নিরাপদ থাকুন। নিজে বাঁচুন, দেশকে বাঁচান। ইনশাআল্লাহ এই আঁধার কেটে যাবে।

 4,903 total views,  1 views today