বিতর্কে জড়ালেন বরিশালের বাসদ নেত্রী মনীষা চক্রবর্তী

 রিপন শান, ব্যুরো চীফ বরিশালঃ সারাদেশের রাজনৈতিক পরিসরে বর্তমানে বামধারার রাজনীতিকদের খুব একটা জনপ্রিয়তা না থাকলেও প্রাচ্যের ভেনিস খ্যাত বরিশালের রাজনীতির মাঠে শ্রমজীবী আপামর মানুষের কাছে গ্রহনযোগ্য একজন রাজনীতিবিদের নাম- বাসদ নেত্রী ডাঃ মনিষা চক্রবর্তী। শ্রমিকের ন্যায্য দাবি আদায়ের প্রায় সকল আন্দোলনেই তাকে দেখা যায় অগ্রভাগে।  সঙ্গত কারনেই বরিশালের মিডিয়ায় ব্যাপক ব কভারেজ পেয়ে থাকেন তিনি। কিন্ত এবার তাকে নিয়ে বরিশাল নগরজুড়ে চলছে নেতিবাচক কথাবার্তা। সম্প্রতি সরকারি বরিশাল কলেজের নাম পরিবর্তন নিয়ে রাজপথ উত্তপ্ত হয়। দুটি ভাগে ভাগ হয়েছে বরিশালের মানুষ। আর যে যার মতের পক্ষে থাকবে এটাই স্বাভাবিক। তারই ধারাবাহিকতায়  বুধবার এই দাবির পক্ষে মাঠে নামেন বাসদ নেত্রী মনিষা চক্রবর্তী। রিক্সা ভ্যান শ্রমিকদের নিয়ে তিনি বরিশাল কলেজের নাম পরিবর্তনের পক্ষে মিছিল করেছেন। সাথে নিয়েছেন কোমলমতি শিশুদের। এ নিয়ে শুরু হয় বিতর্ক। বিশেষ করে মিডিয়া পাড়ায় দিনভর আলোচনায় ছিল বিষয়টি।

বরিশালের সমাজ সচেতন অনেক বিশ্লেষক বলেন, নিজের মত বাস্তবায়নে নিজের ভক্তদের ব্যবহার করেছেন মনিষা। এটা এক ধরনের সেবার বিনিময় গ্রহণের মত। রিক্সা ভ্যান শ্রমিকদের এ কাজে ব্যবহার করা কতটা যৌক্তিক তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তারা। তারা মনে করেন- মানুষের পাশে দাড়িয়ে আবার স্বার্থ হাসিলে তাদের ব্যবহার করাটা কোন সমাজসেবকের কাজ হতে পারে না।

দেশের প্রথম সারির জনপ্রিয় একটি টেলিভিশনের বরিশাল ব্যুরোচীফ প্রশ্ন তুলেছেন আন্দোলনে শিশুদের ব্যবহার নিয়ে ! প্রতিভাবান   এই ব্যুরো চিফ তার ফেসবুক   স্ট্যাটাসে লিখেছেন : ছোট্ট এই কোমলমতি শিশুগুলোর বয়স কত হবে? ৪/৫ বছর; সর্বোচ্চ হলে ১০ ! এই শিশুগুলো আজ দুপুরে রাস্তায় দাড়িয়েছিলেন সরকারি বরিশাল কলেজের নাম পরিবর্তন করে অশ্বিনী কুমার দত্তের নামে করার দাবিতে। এই শিশুরা আদৌ কি জানেন অশ্বিনী কুমার দত্ত কে ছিলেন? দেশ ভাগের আগে এই অঞ্চলের উন্নয়নে তার অবদান কি ছিল? রাস্তায় নামার আগে যদি এই শিশুদের অশ্বিনী কুমার দত্তের জীবনী সম্পর্কে কিছুটা ধারনা মুখস্তও করানো হয়, আমি নিশ্চিত সদর রোড (বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক)  পর্যন্ত গিয়ে তারা সব ভুলে গেছে।

 6,167 total views,  1 views today