ইসরাইলে মাটির নীচ থেকে ১,১০০ বছরের পুরানো আব্বাসীয় শাসনামলের ৪২৫ টি স্বর্ণমুদ্রা উদ্ধার !

 অন লাইন ডেস্ক থেকে, কবির আহমেদঃ ইসরাইলের প্রত্নতাত্ত্বিক বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্ধৃতি দিয়ে বৃটিশ সংবাদ সংস্থা বিবিসি জানান গত ১৮ আগস্ট ইসরাইলের ইয়াভনে শহরের কাছে খননকাজ করার সময় ১,১০০ বৎসরের পুরানো গুপ্তধন উদ্ধার হয়েছে অর্থাৎ ঘড়াভর্তি ‘দুর্লভ’ ৪২৫ টি সোনার মোহর পেয়েছেন খননকারীরা। উদ্ধারকৃত এই স্বর্ণমুদ্রাগুলির সম্মিলিত ওজন 845 g  (30 oz) এবং প্রতিটি মুদ্রা ২৪ ক্যারেটের খাঁটি সোনার তৈরী বলে জানিয়েছেন ইসরাইলের প্রত্নতাত্ত্বিকবিদরা।

ইসরাইলের প্রত্নতত্ত্ববিদরা জানিয়েছেন এই স্বর্ণমুদ্রা গুলি ইসলামের স্বর্ণযুগ আব্বাসীয় শাসনকালের। ইসরাইল সরকার তার দেশের প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনের সন্ধান, উদ্ধার ও রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব দিয়েছেন ‘ইসরাইল অ্যান্টিকস অথরিটি’র উপরে।এই সংস্থা দেশজুড়ে প্রত্নতাত্ত্বিক খনন, রক্ষণাবেক্ষণ এবং গবেষণার প্রসারের কাজেও নিয়োজিত।

সোমবার অ্যান্টিকস অথরিটি’র দুই প্রত্নতাত্ত্বিক লিয়াত নাদাভ- জিভ এবং এলিয়ে হাদাদ এক যৌথ বিবৃতিতে জানিয়েছেন,যে মাটির নীচ থেকে তারা মোট ৪২৫টি ‘অতি দুর্লভ’ প্রাচীন স্বর্ণমুদ্রা আবিষ্কার করেছেন। প্রতিটি মুদ্রা খাঁটি সোনা দিয়ে তৈরি। এর মধ্যে অধিকাংশই ১,১০০ বছর পুরনো আব্বাসীয় আমলের বলে অনুমান।

জানা গিয়েছে, উদ্ধার সম্পদের মধ্যে ছোট আকারের স্বর্ণমুদ্রার বিপুল টুকরো পাওয়া গিয়েছে। সেই আমলে এগুলি স্বল্প মূল্যের মুদ্রা ছিল বলে ইসরাইলি বিশেষজ্ঞদের অভিমত। নবম শতাব্দীর শেষার্ধ ছিল আব্বাসীয় খিলাফতের স্বর্ণযুগ। এই সময় সাম্রাজ্যের সর্বাধিক বিস্তার ঘটেছিল। অ্যান্টিকস অথরিটি’র অন্যতম মুদ্রা বিশেষজ্ঞ রবার্ট কুল জানিয়েছেন, উদ্ধার স্বর্ণমুদ্রাগুলিতে যে সংকেত বা চিহ্ন দেখা গিয়েছে তা থেকে মনে করা হচ্ছে এগুলি আব্বাসীয় খিলাফতের স্বর্ণযুগের। যদিও এই বিষয়ে আরও গবেষণা এবং বিশ্লেষণের প্রয়োজন আছে বলেও মনে করেন তিনি।

আব্বাসীয় খিলাফত সম্পর্কে এখনও বহু তথ্য আমাদের সামনে অজানা। উদ্ধার স্বর্ণমুদ্রা থেকে সে সময় সম্পর্কে আরও অনেক অজানা তথ্য জানা সম্ভব হবে বলে আশাবাদী রবার্ট কুল।

ইসরাইলের বিভিন্ন স্থানে এর আগেও বিভিন্ন সময়ে বহু প্রাচীন স্বর্ণমুদ্রা-সহ নানা প্রাচীন সম্পদ আবিষ্কৃত হয়েছে। ২০১৫ সালে প্রাচীন বন্দর শহর সিয়েসারিয়ায় গুপ্তধনের সন্ধান পেয়েছিলেন জাভিকা ফায়ের নামে এক স্কুভা ডাইভার। সাগরের তলদেশে ঘুরে বেড়ানোর সময় ওই বিপুল সোনার মোহর আবিষ্কার করেন তিনি। সেবার প্রায় ২,০০০টি সোনার মোহর আবিষ্কার হয়। সেগুলি ফাতেমীয় যুগের স্বর্ণমুদ্রা ছিল বলে গবেষণায় জানা যায়।

 

 7,259 total views,  1 views today