চিহ্নিত চাল / ঢাল চোরদের বেশি বেশি ভাইরাল করুন সমাজ কে চোর মুক্ত করুন

ভিয়ানা থেকে, আকতার হোসেনঃ আমি এত সমালোচনা স্টেটিকস বুঝি না । তবে একটা কথা ভালো বুঝতে পারি তা হচ্ছে, এরা চোর নয় এরা মানুষ রুপি জানোয়ার । তবে এই সব চোরেরা এই দেশে নতুন করে জন্ম নেয় নি। এরা অভিজ্ঞ নির্লজ্জ বেশরম । এরাই চুয়াত্তরের কম্বল চোরের বংশধর । পঁচিশ ত্রিশ বছরের শ্বৈরস্বাসকদের শ্বৈরতন্রের দীর্ঘ মেয়াদি ট্রেনিংকৃত চাষাবাদের ফসল । ধারাবাহিক সুবিধাভোগী লুটেরা প্রজন্ম এরা ।

রাজনৈতিক বিবর্তনের উপযোগী সময়ে সকল দলেই ঢুকেছে , আওয়ামী লীগ ও বিপরীত মুখী রাজনৈতিক স্রোতে টিকে থাকতে কখনো ইচ্ছাকৃত কখনো বা অনিচ্ছাকৃত ভাবে এদের স্হান দিয়েছে। সরকারী দল হওয়ায় সুবিধাভোগী অনেকেই রাতারাতি বড় বড় আওয়ামী লীগার হয়ে বিভিন্ন মারফতে ঢুকেছেন। এখন সময় এসেছে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর ভাগ্যের বিপ্লবের দল আওয়ামী লীগকে তার পূর্বের চেহারা বংঙ্গবন্ধুর আদর্শে ফিরিয়ে আনার । সে কারনেই দীর্ঘ দিন থেকেই জননেত্রী শেখ হাসিনা হুঁশিয়ারি দিয়ে আসতেছেন তাঁর কর্মীদের চরিত্র পরিবর্তন করতে ।                                                      

চোর না শুনে ধর্মের কাহিনী । তাই শুরু হলো ধারাবাহিক শুদ্ধী অভিযান । অন্য দলের সাথে আওয়ামী লীগের পার্থক্য হচ্ছে, তারা এদের লালন পালন করতো এবং আড়ালে লুকিয়ে রাখতো । আওয়ামী লীগ গত বছর থেকে তাদের ইস্তাহার অনুয়ায়ী এদের শুদ্ধী অভিযানের মাধ্যমে বের করা শুরু করেছে । তারই ধারাবাহিকতায় বর্তমানে বৈশ্বিক এই মোহাদুর্যোগে করোনাভাইরাসের উচিলায় তৃণমূল পর্যায়ের লুকিয়ে থাকা বাকি চোর দের ও চিহ্নিত করে জনগনের সামনে তুলে ধরে দলকে অনেকটাই শুদ্ধীকরন করছেন। এবং আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করছেন । আমার অনুরোধ দেশের সকল মানুষের কাছে এই চোরদের সোস্যাল মিডিয়ায় বেশি বেশি ভাইরাল করুন । সমাজ থেকে এদের না বলুন । চোর কোন দলের নয় দেশের শত্রু । ভবিষ্যতে এই চিহ্নিত চোরদের কেউই দলে নিবে না । আমরা  সবাই এদের বিচার চাই বেশি বেশি ভাইরাল চাই । সুন্দর সহ অবস্থান চাই সৎ যোগ্য মানুষের জনপ্রতিনিধি চাই । ভালোবাসার পূর্ন একটি সুন্দর প্রজন্মের সমাজ গড়তে চাই। আকতার হোসেন ভিয়েনা।

( মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয় )

 4,255 total views,  1 views today