অস্ট্রিয়ায় দ্বিতীয় লকডাউন দেশের অর্থনীতির উপর প্রচন্ড আঘাত হানবে – Agenda Austria

 অন লাইন ডেস্ক থেকে,কবির আহমেদঃ বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসের কারনে অস্ট্রিয়ার বেশীরভাগ শিল্প-প্রতিষ্ঠান ইতিমধ্যেই গভীর সঙ্কটে রয়েছে এবং আগামী সপ্তাহ ও মাসগুলিতে আরও বিধিনিষেধ আসন্ন। বর্তমানে ব্যবসা মন্দার জন্য অনেক ছোট প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে।

করোনার নতুন সংক্রমণ বিস্তার রোধে রাজনীতিবিদরা পুনরায় বিধিনিষেধ আরোপ করে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করছেন। তবে অস্ট্রিয়া এবং ইউরোপে দ্রুত সংক্রমণ বিস্তার লাভ করলেও সংক্রমণ রোগ বিশেষজ্ঞরা ডিসেম্বর বা জানুয়ারী পর্যন্ত এই দ্বিতীয় তরঙ্গের আসল বা চূড়ান্ত রূপ দেখতে পাচ্ছেন না। তাই বিশেষজ্ঞরা সরকারকে আপাতত কঠোর বিধিনিষেধ আরোপের মাধ্যমে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের পরামর্শ দিয়ে আসছেন। তাছাড়াও নতুন করোনার আইন অনুসারে, কোনও প্রতিরোধমূলক নিষেধাজ্ঞা জারি করা যাবে না। শুধুমাত্র স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়ার উপক্রম হলে অর্থাৎ হাসপাতালগুলিতে রোগী ভর্তির সক্ষমতা হারালে এবং দেশের আইসিইউ পূর্ণ হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিলে সরকার নতুন লকডাউন জারি করতে পারেন।

“এজেন্ডা অস্ট্রিয়া” অস্ট্রিয়ান অর্থনীতির জন্য দ্বিতীয় লকডাউন মানে কী গণনা করেছে এবং সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে যে, এটি অর্থনীতির জন্য  একটি নাটকীয় বিপর্যয় নিয়ে আসবে। অস্ট্রিয়ায় যদি গত মার্চ মাসের মতই লকডাউন দেওয়া হয় তাহলে দেশের অর্থনৈতিক অবনতি বা মন্দা প্রত্যাশার চেয়ে আরও ৪০ শতাংশ বেশি হবে বলে মনে করেন,  এজেন্ডা অস্ট্রিয়ার অর্থনীতিবিদ হ্যানো লরেঞ্জ।

এখন যদি দেশে দ্বিতীয় লকডাউন প্রতিরোধ করা যায়, তবে দেশের অর্থনীতির ক্ষতি প্রায় ৭  শতাংশ কমে আসবে।”এটি অবশ্যই পুরোপুরি স্পষ্ট যে সরকারকে স্বাস্থ্য হুমকি সমূহকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করা উচিত। অর্থনীতির পরিণতি সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার নয়। তবে লকডাউন সহ বা দীর্ঘকাল ধরে আমরা মহামারীটির পরিণতি অনুভব করব। এটি দুর্ভাগ্যক্রমে আমাদের পরিষ্কার হতে হবে “, বলেছেন লরেঞ্জ।

 10,152 total views,  1 views today