নভেম্বরের ২ তারিখ থেকে জার্মানিতে ৪ সপ্তাহের “লকডাউন লাইট ” লকডাউনে সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা থাকবে !

 সমাচার ডেস্ক থেকে,কবির আহমেদঃ জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মের্কেল সোমবার ২ নভেম্বর থেকে ৪ সপ্তাহের জন্য জার্মানিতে “লকডাউন লাইট” এর ঘোষণা দিয়েছেন। চ্যান্সেলর মের্কেল জার্মানিতে করোনার দ্রুত সংক্রমণ বৃদ্ধিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন,হাতে সময় খুবই কম,তাই আমাদের এখনই সংক্রমণের বিস্তার রোধে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হবে। বর্তমান লকডাউনটি গত বসন্তের মতো ততটা কঠোর নয় বলে একে লকডাউন লাইট বলা হয়েছে। এই লকডাউনে রাস্ট্রীয় ও ব্যক্তিগত পর্যায়ে যোগাযোগ হ্রাসের উপর গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।                                                                                             

এই লকডাউন লাইটে যে সমস্ত বিধিনিষেধ থাকছে তা নিম্নে আলোচনা করা হল- সামাজিক যোগাযোগে শুধুমাত্র দুই পরিবারের সদস্যদেরই পারস্পরিক দেখা বা মিলিত হওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে সর্বোচ্চ ১০ জনের। সকল প্রকার রেস্তোঁরা, বার, ক্লাব, ডিস্কো এবং পাব বন্ধ থাকবে। অন লাইন সার্ভিসের মাধ্যমে বাড়িতে খাবার সরবরাহ ও সংগ্রহের অনুমতি রয়েছে। ক্যান্টিনগুলিও খোলার অনুমতি রয়েছে। বিনোদনমূলক সুবিধা বন্ধ থাকবে। এর মধ্যে রয়েছে থিয়েটার, অপেরা, কনসার্ট হল, বাণিজ্য মেলা, সিনেমাঘর, বিনোদন পার্ক ইত্যাদি। খেলাধুলার বিষয়ক ফিটনেস স্টুডিও, সুইমিং পুল, অপেশাদার ক্রীড়া বিষয়ক সমস্ত ক্রিয়াকলাপ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। তাই ক্লাবগুলিকে প্রশিক্ষণের অনুমতি দেওয়া হয় নি। তবে একা জগিংয়ের মতো ব্যক্তিগত ক্রীড়া ও শরীর চর্চার অনুমতি রাখা হয়েছে। জাতীয় ফুটবল লীগের মতো পেশাদার ক্রীড়া কেবল দর্শকদের ছাড়াই অনুমোদন দেওয়া হয়েছে অর্থাৎ স্টেডিয়ামে দর্শকের উপস্থিতি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। সেবা. কসমেটিক স্টুডিওস, ম্যাসেজ অনুশীলন এবং ট্যাটু স্টুডিওগুলিও বন্ধ থাকবে কারণ এখানে ন্যূনতম দূরত্ব বজায় রাখা যায় না। তবে ফিজিও থেরাপিস্টের ক্লিনিক ও হেয়ারড্রেসার গুলি খোলা রাখার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। সুপারমার্কেট সহ অন্যান্য নিত্য প্রয়োজনীয়তার খুচরা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা থাকবে – তবে একই সময়ে কতজন গ্রাহক দোকানে থাকতে পারবেন সে সম্পর্কে বিধিবিধান রয়েছে। ওষুধের দোকান খোলা থাকবে এবং সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।                                                                                   

জার্মানি সরকারের এক প্রেস নোটে আরও বলা হয়েছে “ফেডারেল সরকার এবং রাজ্য সরকার সব সময় সচেতন থাকবে যে এই নতুন বিধিনিষেধ গুলি যেন জনগণের জন্য একটি বিশাল বোঝা না হয়ে দাঁড়ায়। জার্মানিতে বুধবার ২৮ অক্টোবর একদিনেই করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ১৬,২০২ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৯৬ জন। এই পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৪,৭৯,৬৩১ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১০,৩৫৯ জন। করোনার থেকে আরোগ্য লাভ করেছেন ৩,৩২,৮০০ জন।

 10,285 total views,  1 views today