৩ নভেম্বর থেকে অস্ট্রিয়ায় ৪ সপ্তাহের জন্য দ্বিতীয় লকডাউন ঘোষণা

রাত ৮ থেকে সকাল ৬ টা পর্যন্ত কারফিউ ! স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কারফিউ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি !  

 নিউজ ডেস্ক থেকে,কবির আহমেদঃ শনিবার ৩১ অক্টোবর বিকালে অস্ট্রিয়ার ফেডারেল সরকার করোনার সংক্রমণ অস্বাভাবিক বৃদ্ধির ফলে দেশে দ্বিতীয়বারের মতো লকডাউন ঘোষণা করেছেন। মঙ্গলবার ০০:০০ ঘন্টা থেকে এই লকডাউনের নির্দেশ কার্যকর হবে। প্রাথমিকভাবে এই লকডাউন ৪ সপ্তাহের জন্য ঘোষণা করা হয়েছে।                   

প্রেস ব্রিফিংয়ে সরকার প্রধান চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জ বলেন সমগ্র ইউরোপে বর্তমানে করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় তরঙ্গের প্রবাহ চলছে। আমাদের প্রতিবেশী অনেক দেশেই লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। আমাদের দেশেও করোনার সংক্রমণ অত্যন্ত আশঙ্কাজনকভাবে ভাবে বিস্তার লাভ করছে। এর ফলে আমাদের হাসপাতাল ও আইসিইউ ক্রমশ রোগীর চাপে পূর্ণ হওয়ার পথে। এমতাবস্থায় দেশে পুনরায় লকডাউন দেওয়া ছাড়া আমাদের আর কোন বিকল্প পথ খোলা নেই। তিনি আরও জানান,সরকার গতকাল দেশের সংক্রমণ রোগ বিশেষজ্ঞ ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ,আজ সকালে দেশের শীর্ষ ব্যবসায়ী ও সামাজিক নেতৃবৃন্দের সাথে এবং বিকালে দেশের সংসদের বিরোধীদলের নেতৃবৃন্দের সাথে লকডাউনের ব্যাপারে তাদের বিস্তারিত আলোচনা করেছেন এবং তাদের মতামত নেয়া হয়েছে।                            

সরকারের উপ প্রধান ও খেলাধুলা বিষয়কমন্ত্রী ভার্নার কোগলার তার বক্তব্যে বলেন, বর্তমানে দেশে করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি উদ্বেগজনক। তিনি বলেন, রাত ৮ টা থেকে ভোর ৬ টা পর্যন্ত সমগ্র দেশে কারফিউ জারি করা হয়েছে। এখন থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত স্টেডিয়ামে দর্শকদের উপস্থিতি পুনরায় নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তিনি সকলকে বিশেষ সতর্কতার সাথে চলাফেরার পরামর্শ দিয়েছেন এবং সরকারের বিধিনিষেধ যথাযথভাবে মেনে চলার কথা বলেছেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী রুডল্ফ আনস্কোবার তার বক্তব্যে বলেন, আমাদের দেশে করোনার সংক্রমণ আমাদের হিসাবের চেয়েও অনেক দ্রুত বিস্তার লাভ করছে। তিনি গত এক সপ্তাহের বৃদ্ধির একটি পরিসংখ্যান দেখিয়ে বলেন পরিস্থিতি খুবই উদ্বেগজনক। সংক্রমণ বৃদ্ধির সাথে সাথে হাসপাতাল ও আইসিইউ এর সংকুলানও সংকুচিত হয়ে আসছে। তিনি বিশেষজ্ঞদের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, যদি আমরা এখনই জরুরী ভিত্তিতে ব্যবস্থা গ্রহণ না করি তাহলে নভেম্বরের ১৫ তারিখের পূর্বেই আমাদের হাসপাতাল ও আইসিইউ করোনার রোগীদের দ্বারা পূর্ণ হয়ে যাবে। কাজেই জরুরী ভিত্তিতে এখন লকডাউন দিয়ে নভেম্বরের মাঝামাঝির পূর্বেই আমাদের দেশে করোনার সংক্রমণের বিস্তার কমিয়ে আনতে হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কার্ল নেহামার মঙ্গলবার ৩ নভেম্বর থেকে ৪ সপ্তাহের জন্য রাত ৮ টা থেকে ভোর ৬ টা পর্যন্ত কারফিউ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন। তিনি বলেন,দেশের পুলিশ সদস্যদের এই কারফিউ চলাকালীন সময়ে যাদের বের হওয়ার অনুমতি আছে তাদের ব্যতীত অন্যান্যদের মামলা এবং জরিমানার সম্মুখীন হতে হবে বলে জানিয়েছেন।                                     

আজ অস্ট্রিয়ায় করোনায় নতুন করে সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন ৫,৩৪৯ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ২৭ জন। অস্ট্রিয়ায় করোনাভাইরাস সনাক্ত হওয়ার প্রায় ৮ মাস পর আজ আক্রান্তের সংখ্যা এক লক্ষ ছাড়িয়েছে। রাজধানী ভিয়েনায় আজ করোনায় সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন ৯৫২ জন। অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষ ৪ হাজার ৯২৫ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১,১০৯ জন। করোনার থেকে আরোগ্য লাভ করেছেন ৬৭,২২৬ ,জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৩৬,৫৯০ জন। এর মধ্যে ক্রিটিক্যাল অবস্থার মধ্যে আইসিইউতে আছেন ২৬৫ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ১,৮৬৭ জন। অন্যান্যরা নিজ নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন।

 10,772 total views,  1 views today