অষ্ট্রিয়ায় জানুয়ারী-মার্চ মাসে প্রথম ভ্যাকসিন পাবে ঝুঁকিপূর্ণ গ্রুপের লোকজন এবং স্বাস্থ্যকর্মীরা – স্বাস্থ্যমন্ত্রী

সাধারণ মানুষের জন্য করোনার ভ্যাকসিন এপ্রিল মাস থেকে !  

 অন লাইন ডেস্ক থেকে,কবির আহমেদঃ বুধবার সন্ধ্যায় অস্ট্রিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী স্থানীয় একটি টেলিভিশন সম্প্রচার কেন্দ্রে একথা বলেন। তিনি ব্যাখ্যা করে বলেন স্বাস্থ্যগত ঝুঁকিপূর্ণ লোকজন এবং স্বাস্থ্য সেবাতে নিয়োজিত লোকেরাই ২০২১ সালের প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারী-মার্চ) কোভিড -১৯ এর বিরুদ্ধে টিকা দিতে পারবে। তাই সাধারণ সবার জন্য করোনার ভ্যাকসিন দ্বিতীয় কোয়ার্টার (এপ্রিল -জুন) থেকে দেয়া শুরু হবে।                                                     

ইইউ এবং ফার্মাসিউটিক্যাল সংস্থাগুলি বায়োএনটেক এবং ফাইজারের মধ্যে বিতরণ চুক্তি অনুসারে স্বাস্থ্যমন্ত্রী রুডল্ফ আনসকোবার (গ্রিনস) আশাবাদী যে ঝুঁকিপূর্ণ গোষ্ঠী এবং স্বাস্থ্যকর্মীরা ২০২১ সালের প্রথম প্রান্তিকে করোনভাইরাসকে টিকা পাবে। “আমি ধরে নিয়েছি যে অন্য আগ্রহী জনগণকে দ্বিতীয় চতুর্থাংশ থেকে ধাপে ধাপে টিকা দেওয়া যেতে পারে। আমরা বর্তমানে এটির জন্য টিকা দানের রসদ প্রস্তুত করছি।”                       

অস্ট্রিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রনালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে অস্ট্রিয়ায় যারা স্বাস্থ্যগত ঝুঁকিপূর্ণ গ্রুপে তাদেরকে প্রথমে করোনার ভ্যাকসিন দেয়া হবে। তারপর স্বাস্থ্য সেবায় নিয়োজিত লোকজন ভ্যাকসিন পাবে। ঝুঁকিপূর্ণ গ্রুপের লোকজন হল,যারা গুরুতর অসুস্থ বা যাদের বয়স ৭০ এর উপরে। এতে আরও বলা হয়েছে, “আমরা কোভিড -১৯ টিকা দেওয়ার জন্য নিম্ন-প্রান্তিক অ্যাক্সেস তৈরি করব। উদাহরণস্বরূপ, মোবাইল ভ্যাকসিনেশন টিমও থাকবে। সম্ভাব্য টিকা দেওয়ার সাইটগুলি ভ্যাকসিনগুলির বৈশিষ্ট্যগুলির উপরও নির্ভর করে স্থাপন করা হবে, উদাহরণস্বরূপ স্টোরেজ সম্পর্কিত বিষয়ের জন্য। মন্ত্রণালয় বর্তমানে জাতীয় টিকাদান কমিটির সাথে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতায় এবং ইইউ ভ্যাকসিনেশন কৌশলের ভিত্তিতে একটি জাতীয় টিকাদান কৌশল নিয়ে কাজ করছে।                                              

এটি অবশ্যই নতুন অনুসন্ধান অনুসারে নিয়মিত রূপান্তর করতে হবে এবং এক বা একাধিক ভ্যাকসিন আসলে যেটি অনুমোদিত হবে সেটাই চূড়ান্ত বলে গ্রহণ করা হবে। ইউরোপীয় মেডিসিন এজেন্সি (ইএমএ) দ্বারা বাজার অনুমোদনের ডেলিভারির সঠিক সময় নির্ধারণ করা হবে। মন্ত্রী বলেন,”আমাদের জন্য ভ্যাকসিন পাবার ব্যবস্থা অগ্রভাগে রয়েছে। সুতরাং প্রথমে টিকা বা ভ্যাকসিনটির অনুমোদনের প্রক্রিয়া পুরোপুরি সম্পন্ন হয়েছে তা গ্যারান্টিযুক্ত হওয়া গুরুত্বপূর্ণ,” “প্রথম অনুমোদন বছরের মোড়ের কাছাকাছি হতে পারে বলে তিনি  আশা করেন। “অস্ট্রিয়া  কোভিড -১৯ টি ভ্যাকসিন সংগ্রহের ক্ষেত্রে জাতীয় একক প্রচেষ্টা না নিয়ে একটি যৌথ ইউরোপীয় প্রচেষ্টার দিকে পরিচালিত করে তা নিশ্চিত করতে প্রধান ভূমিকা পালন করেছে। সঠিক টিকাদান কৌশল এবং রসদ এখন অস্ট্রিয়ায় প্রস্তুত রয়েছে। চেম্বার অফ ফার্মাসিস্ট সময়োচিত পরিকল্পনার জন্য বলেছিলেন এবং নিজেকে অংশীদার হিসাবে প্রস্তাব করেছিলেন।                              

“ফার্মাসিস্টরা, টিকাদান প্রচারে তাদের দশকের অভিজ্ঞতার সাথে শুরু থেকেই ভ্যাকসিন পরিচালনার সাথে জড়িত হওয়া উচিত, যাতে কোভিড -১৯ টি ভ্যাকসিনের সুশৃঙ্খল বিতরণ নিশ্চিত করা যায়,” অস্ট্রিয়ান চেম্বার অফ ফার্মাসিস্টের প্রেসিডিয়াম সদস্য গারহার্ড কোবিঞ্জার জোর দিয়ে একথা বলেছেন। তিনি আরও বলেন অস্ট্রিয়ায় এ পর্যন্ত দেখা সবচেয়ে বড় টিকাদান অভিযান আসন্ন।                               

আজ অস্ট্রিয়ায় করোনায় আক্রান্ত সনাক্ত হয়েছেন ৭,৫১৪ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৬৫ জন। রাজধানী ভিয়েনায় আজ করোনায় সনাক্ত হয়েছেন ১,৪২৭ জন্য। অন্যান্য রাজ্যের মধ্যে OÖ 1,396, Tirol 1,103,NÖ 1,076, Ktn.886,Stmk 869, Sbg 291,Vbg 272 এবং Bgld রাজ্যে ১৯৪ জন নতুন সংক্রমণ সনাক্ত হয়েছেন।                        

অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১,৭২,৩৮০ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১,৫৬৪ জন। করোনার থেকে আরোগ্য লাভ করেছেন ১,০৩,৭৫৯ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৬৭,০৫৭ জন। এর মধ্যে ক্রিটিক্যাল অবস্থায় আইসিইউতে আছেন ৫৩৬ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ৩,৭১৯ জন। বাকীরা নিজ নিজ বাসায় আছেন।

 10,485 total views,  1 views today