অস্ট্রিয়ার প্রধান বিরোধীদল SPÖ স্কুল বন্ধ না করার পক্ষে !

বিশেষজ্ঞরা যদি মনে করেন বন্ধ করলে সংক্রমণ কমতে পারে,তাহলে আপত্তি নাই !

 অন লাইন ডেস্ক থেকে,কবির আহমেদঃ আজ ভিয়েনায় এক সাংবাদিক সম্মেলনে অস্ট্রিয়ার প্রধান বিরোধীদল সোস্যালিস্ট পার্টি অস্ট্রিয়ার(SPÖ) চেয়ারপার্সন ডা.পামেলা রেন্দি-ভাগনার বলেন, বর্তমানের করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধিতে স্কুল বন্ধ করে দিলেও সংক্রমণ বিস্তার রোধে তেমন কোন প্রভাব পড়বে না। কেননা করোনা ভাইরাস ১৪ বৎসরের নীচের শিশুদের মধ্যে তেমন একটা সংক্রমণ ছড়ায় না। স্কুল বন্ধ না করে শ্রেণী বিভাজন এবং সুরক্ষা আরও জোরদার করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।                                  

রেন্ডি-ভাগনার যুক্তি দিয়ে বলেন, যে স্কুল বন্ধ হওয়া সঠিকতা এবং কার্যকারিতার বিপরীতে হবে কারণ তাদের দ্বারা সংক্রমণ বিস্তারের কোনও ডেটা ভিত্তি নেই। এজিইএস (AGES) এবং আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত যে করোনা ভাইরাস ১৪ বছর বয়সী স্কুল শিশুরা ভাইরাসের সংক্রমণের বিস্তারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে না। অস্ট্রিয়ায় করোনায় শিশু সংক্রমণের হার অনেক হ্রাস পেয়েছে। স্কুল বন্ধ হওয়ার ফলে শিশুদের স্বাস্থ্য, মানসিক এবং শিক্ষাগত ক্ষতি হতে পারে।

SPÖ প্রধান আরও উল্লেখ করেছেন যে, উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ছাড়াও সমগ্র অস্ট্রিয়ায় প্রায় ৭ লক্ষাধিক শিশু বাসায় থাকলে তাদের পিতামাতার উপরও অতিরিক্ত চাপ পড়বে। তাই তিনি ভাইরাসটির সংক্রমণ বৃদ্ধির রোধে অন্যান্য বিধিনিষেধ আরও কঠোর করার আবেদন জানান তবে তিনি শিশুদের স্কুল বন্ধ না করার জন্য সরকারের নিকট অনুরোধ করেছেন।                                            

সাংবাদিক সম্মেলনে SPÖ এর শিক্ষাবিষয়ক উপদেষ্টা সোনিয়া হামার্সমিড বলেন,স্কুল বন্ধ না করে শিশুদের জন্য নিয়মিত গারগল পরীক্ষা ও মাস্ক পড়ার নিশ্চিত করা যেতে পারে। তিনি শ্রেণী কক্ষে প্রতি ২০ মিনিট পর পর জানালা খুলে কক্ষগুলিতে সংক্ষেপে বায়ুচলাচল করা যেতে পারে। তবে রেন্ডি-ভাগনার সবশেষে বলেন,যদি আমাদের দেশের সংক্রমণ রোগ বিশেষজ্ঞরা দেশে সম্পূর্ণ লকডাউনের পরামর্শ দেয় এবং স্কুলও বন্ধ করার পরামর্শ দিয়ে থাকে তাহলে বন্ধ দেয়া যেতে পারে।                                           

আজ অস্ট্রিয়ায় করোনায় নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন ,২৬২ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৪৪ জন। আজ অস্ট্রিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বেশী সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন Oberösterreich রাজ্যে ২,৫৫৪ জন এবং দ্বিতীয় স্থানে আছে রাজধানী ভিয়েনা ২,১৫১ জন। অন্যান্য রাজ্যের মধ্যে Steiermark রাজ্যে ১,১১৬ জন, Tirol রাজ্যে ৮৭৯ জন,Salzburg রাজ্যে ৭৯৮ জন, Niederösterreich রাজ্যে ৬৩৪ জন, Vorarlberg – রাজ্যে ৫৩৭ জন, Kärnten রাজ্যে ৩৯৯ জন এবং Burgenland রাজ্যে ১৯৪ জন নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন।

অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষ ৮১ হাজার ৬৪২ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১ হাজার ৬০৮ জন। করোনার থেকে আরোগ্য লাভ করেছেন ১,০৭,৮৭৫ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৭২,১৫৯ জন। এর মধ্যে ক্রিটিক্যাল অবস্থায় আইসিইউতে আছেন ৫৪৬ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ৩,৮১১ জন। বাকীরা নিজ নিজ বাসায় আইসোলেশনে আছেন।

 10,211 total views,  1 views today