অস্ট্রিয়ার দাঁড় গোড়ায় করোনার টিকা বা ভ্যাকসিন !

 অন লাইন ডেস্ক থেকে,কবির আহমেদঃ অস্ট্রিয়ান বিশেষজ্ঞরা নতুন বৎসরের শুরুতে প্রথম করোনার টিকা ভ্যাকসিন ডোজ দেওয়ার আশা করছেন। সম্ভাব্য করোনভাইরাস ভ্যাকসিনের বেশ কয়েকটি নির্মাতারা গত দুই সপ্তাহের মধ্যে সাফল্যজনক অন্তর্বর্তীকালীন ফলাফল প্রকাশ করেছেন।                     

শুক্রবার এ টিকা সম্পর্কে এক প্রশ্নের জবাবে”ফার্মাসিউটিকাল ইন্ডাস্ট্রির (ফার্মিগ) সমিতির সাধারণ সম্পাদক Alexander Herzog অত্যন্ত উৎফুল্লতার সাথে জানান, করোনার ভ্যাকসিন এখন আমাদের দরজার কাছাকাছি এসে গেছে। ডিসেম্বর মাসেই আমাদের ভ্যাকসিন সরবরাহ করা হতে পারে। অস্ট্রিয়ান ভ্যাকসিন ম্যানুফ্যাকচারার্সের অ্যাসোসিয়েশন (ÖVIH) এর সভাপতি রেনি গ্যালো -ড্যানিয়েলও ভ্যাকসিন প্রতিষ্ঠান Moderna এর সাথে আরও একাধিক ভ্যাকসিন প্রতিষ্ঠান আগামী বৎসরের শুরুতেই ভ্যাকসিন দিবে বলে অত্যন্ত আত্মবিশ্বাসের আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।                                             

গ্লোলো-ড্যানিয়েল এক অনলাইন প্রেস কনফারেন্সে জানিয়েছেন, তিনটি করোনার ভ্যাকসিন প্রতিষ্ঠান ইতিমধ্যে রোলিং পর্যালোচনা প্রক্রিয়ায় রয়েছেন। যেমন অ্যাস্ট্রাজেনেকা, বায়োএনটেক / ফাইজার এবং মোদার্নার তিনটি করোনা ভ্যাকসিন  প্রতিষ্ঠান ইতোমধ্যে ইউরোপীয় মেডিসিন এজেন্সি (ইএমএ) এর রোলিং পর্যালোচনা প্রক্রিয়ায় রয়েছেন। অনুমোদনের জন্য আবেদন জমা দেওয়ার পূর্বে ভ্যাকসিনের ফলাফলগুলি মূল্যায়ন করা হয়েছে।                  

Pharmig এর সাধারন সম্পাদক Alexander Herzog আরও জানান,যে সম্প্রতি অ্যাস্ট্রাজেনিকার এই ভ্যাকসিনটি ৫৫ বৎসরের বেশী বয়সের লোকেরা খুব ভালভাবে সহ্য করেছে এবং ৭০ বৎসরের বেশী বয়সের লোকদের প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ফলাফল রয়েছে বলে জানা গেছে। আরও বিস্তারিত পরীক্ষার ফলাফল ক্রিসমাসের আগে পাওয়া যাবে বলে আশা করা যেতে পারে।                                                

বায়োএনটেক / ফাইজারের ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা ৯৫ শতাংশ সফল রয়েছে। Herzog এর মতে এটি “খুব উচ্চ” এবং “একটি সাধারণ ফ্লু টিকা দেওয়ার চেয়ে বেশি”। তিনি গর্ব বোধ করে বলেন যে, এই ভ্যাকসিন উদ্ভাবনে অস্ট্রিয়ার ক্লোস্টেরনুবার্গ সংস্থা পলিমুন প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করেন। প্রাথমিক তথ্য অনুসারে, Moderne এর ভ্যাকসিনটিও ৯৫ % পর্যন্ত কার্যকর হতে পারবে বলেও আশা করা যায়। ইইউ সমস্ত সদস্য রাষ্ট্রের সাথে চুক্তি করেছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সরকার। সমস্ত সদস্য দেশগুলির সাথে এই মর্মে চুক্তি সম্পাদন হয়েছে যে ১৫ বিলিয়ন পর্যন্ত ভ্যাকসিন ডোজ ক্রমান্বয়ে দেওয়ার বিধান করেছেন বলে” গ্যালো-ড্যানিয়েল বলেছেন। জনসংখ্যার ভিত্তিতে অস্ট্রিয়া প্রথম পর্বে এই কোটার দুই শতাংশ পাবে। ইইউর জন্য প্রস্তুতকারকের কাছ থেকে ২০০ মিলিয়ন ডোজের মধ্যে অস্ট্রিয়া পাবে ৪ (চার) মিলিয়ন ডোজ ।

সবশেষে Alexander Herzog বলেন,শুধুমাত্র করোনার ভ্যাকসিন আসলেই করোনা শেষ হয়ে যাবে না। আমাদের সকলকেই করোনার স্বাভাবিক বিধিনিষেধ অনবরত পালন করে চলতে হবে। যেমন,হাত ধোয়া, নিজেদের মধ্যে দূরত্ব বজায় রেখে চলা এবং মুখ এবং নাকের সুরক্ষা পরিধান করা ইত্যাদি।             

আজ অস্ট্রিয়ায় করোনায় আক্রান্ত সনাক্ত হয়েছেন ৬,৬৬৮ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১০৮ জন। আজ রাজধানী ভিয়েনায় সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন ১,২৮০ জন। অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২,৩৫,৩৫১ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ২,২২৪ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৭৬,৬৪৪ জন। এর মধ্যে আইসিইউতে আছেন ৬৮৭ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ৪,৬২৯ জন। বাকী আক্রান্তরা নিজ নিজ বাসায় আইসোলেশনে আছেন। 

 10,504 total views,  1 views today