অস্ট্রিয়ার ব্রাউনাউ জেলা থেকে প্রস্থান নিয়ন্ত্রণ শুরু

করোনার সংক্রমণের অব্যাহত বৃদ্ধিতে উদ্বিগ্ন সরকার প্রধান চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জ, শীতকালীন স্কি খেলায় শুধুমাত্র তারাই অংশগ্রহণ করতে পারবে যাদের টিকা দেয়া আছে

 কবির আহমেদঃ ইউরোপ ডেস্কঃ অস্ট্রিয়ান সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছেন অস্ট্রিয়ায় বর্তমানে করোনার সংক্রমণ অব্যাহত বৃদ্ধির ফলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন সরকার প্রধান চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জ (ÖVP)। তিনি আজ জার্মান ফাঙ্ক মিডিয়া গ্রুপের (শনিবার সংস্করণ) একটি সাক্ষাৎকারে এই উদ্বেগের কথা জানান এবং তিনি ঘোষণা করেন আসন্ন শীত মৌসুমেও করোনার পরিস্থিতি উন্নতির তেমন কোন সম্ভাবনা নাই,তাই শীতকালীন স্কি খেলায় তারাই অংশগ্রহণ করতে পারবে যাদের করোনার গ্রিন পাস থাকবে। উল্লেখ্য যে,অস্ট্রিয়ার শীতকালীন স্কি ফিল্ডে জার্মানির লোকজন সবচেয়ে বেশী আসে।

সরকার প্রধান আরও জানান,যদি আগামী সপ্তাহেও করোনার সংক্রমণ এই রকম বৃদ্ধি অব্যাহত থাকে তাহলে সপ্তাহের শেষে বিশেষজ্ঞদের সাথে আলাপ আলোচনা করে সংক্রমণের বিস্তার রোধে আরও কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করা হতে পারে বলে তিনি ঈঙ্গিত দিয়েছেন।

জার্মানি ও চেক প্রজাতন্ত্রের সীমান্তবর্তী অস্ট্রিয়ার Oberösterreich(OÖ) রাজ্যের জনপ্রিয় দৈনিক পত্রিকা “OÖ Nachrichten” জানিয়েছেন আজ শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে এই রাজ্যের Braunau জেলা থেকে প্রস্থান অর্থাৎ বের হওয়া কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করছে রাজ্য প্রশাসন।এই নিয়ন্ত্রণ সুষ্ঠু, সুন্দর ও সঠিকভাবে সম্পন্ন করতে পুলিশের সাথে অস্ট্রিয়ান সেনাবাহিনীকেও নিয়োজিত করেছে OÖ রাজ্য প্রশাসন।

রাজ্যের পুলিশ বিভাগের মুখপাত্র মাইকেল বাবল পত্রিকাটিকে বলেন, “আমরা স্থান পরিবর্তন করতে থাকি কারণ এখানে সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নেই”। ফলে করোনার সংক্রমণ চতুর্দিকে ছড়িয়ে পড়ছে। তিনি আরও জানান আজ প্রথম দিন নিয়ন্ত্রণ খুব সুষ্ঠু, সুন্দর ও সুশৃন্খল ভাবেই সম্পন্ন হয়েছে। লোকজন নিরাপত্তা কর্মীদের সাথে সর্বাত্মক সহযোগিতা করছে।

OÖ Nachrichten এর স্থানীয় সংবাদদাতা Laci Vorich বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করে জানান, জনগণকে বেশ সচেতন ও সতর্কতা অবস্থায় দেখা গেছে। তিনি জানান, ফেডারেল হাইওয়ে ১৪১ এ আউ গ্রামে আটজন পুলিশ কর্মকর্তার সাথে অস্ট্রিয়ান সেনাবাহিনীর দুই জন সেনা সদস্যকেও প্রস্থান নিয়ন্ত্রণের জন্য নিয়োজিত করা হয়েছে।

তিনি জানান, প্রস্থান নিয়ন্ত্রণে নিয়োজিত সদস্যরা যখনই কোন গাড়িতে থামান,তখন তারা খুব আগ্রহ সহকারে দ্রুত তাদের করোনার টিকাদানের সনদ বা পিসিআর পরীক্ষার নেগেটিভ সার্টিফিকেট দেখাচ্ছেন।

সশস্ত্র বাহিনীর দুই সদস্যের দ্বারা নিয়ন্ত্রণ করা হয়েছিল।  “কেউ মন খারাপ করে না।  আমি যে 20 মিনিটের মধ্যে সেখানে ছিলাম, প্রত্যেকেরই তাদের সাথে একটি টিকা সার্টিফিকেট বা একটি কোভিড পরীক্ষা ছিল।  মেজাজ তুলনামূলক ভালো।  নিয়ন্ত্রণের কারণে বিলম্ব ন্যূনতম, “OÖN কর্মচারী Laci Vorich বলেছেন।

Oberösterreich রাজ্যের সেনাবাহিনীর কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার ডিয়েটার মুহর OÖ Nachrichten কে বলেন, মাঠে কর্মরত সেনা সদস্যরা জানিয়েছেন এই রাজ্যের Braunau জেলা থেকে বিভিন্ন বের হওয়ার রাস্তা দিয়ে তাদেরকেই যেতে দেয়া হচ্ছে যাদের সাথে করোনার প্রতিষেধক টিকাদানের সনদ, করোনা থেকে সম্প্রতি আরোগ্য লাভের সনদ( ৬ মাস) এবং করোনার পিসিআর পরীক্ষার নেগেটিভ সনদ আছে।

তিনি আরও জানান, Braunau জেলা থেকে এই প্রস্থান নিয়ন্ত্রণে সেনাবাহিনীর সদস্যদের সাথে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনও সার্বক্ষণিক সমন্বয় করে ডিউটি পালন করা হচ্ছে।

সশস্ত্র বাহিনীর রিপোর্ট, “পুনরুদ্ধার, পরীক্ষা, টিকা” (3-জি প্রমাণ) এর প্রথম নিয়ন্ত্রণগুলি জনসংখ্যার ভাল সহযোগিতায় পরিচালিত হয়েছিল।  জনগণ ভালোভাবে অবগত।  “পুলিশ এবং জেলা প্রশাসনের সহযোগিতা অত্যন্ত ভাল কাজ করে।  জনসংখ্যার আচরণ অনুকরণীয় এবং জনসংখ্যা পদক্ষেপের প্রয়োজনীয়তা দেখে, “উচ্চ অস্ট্রিয়ার সামরিক কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার ডিয়েটার মুহর বলেছেন।

OÖNachrichten কে সেনাবাহিনীর জেলা ক্যাপ্টেন জেরাল্ড ক্রনবার্গার জানান,শনিবার দুপুর ১২ টার মধ্যে জেলা সীমান্তে ১২০০ মোটরচালকদের চেক করা হয়েছিল।  তাদের মধ্যে ১৫ জনকে ৩-জি প্রমাণের অভাবে ফিরে যেতে হয়েছিল। OÖN সাক্ষাৎকারে, ক্রোনবার্গার এই সত্যের দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলেন যে প্রত্যাখ্যাত চালকরা নিবন্ধিত হবে।  যদি তারা আবারও জেলা ছাড়তে ধরা পড়ে, তাহলে তাদের বিপুল জরিমানার সম্মুখীন হতে হবে।

সামগ্রিকভাবে, নিয়ন্ত্রণগুলি পরিকল্পনা অনুসারে চলছে।  কর্মকর্তারা সুপারিশ করেন যে, যে কাউকে টিকা দেওয়া হয়নি, পুনরুদ্ধার করা বা পরীক্ষা করা হয়নি তাকে পরবর্তী পরীক্ষা কেন্দ্রে যেতে হবে।এটি এই জেলায় প্রথমবার নয় যে ব্রাউনাউয়ের লোকেরা প্রস্থান নিয়ন্ত্রণের মুখোমুখি হয়েছে। গত এপ্রিলের প্রথম দিকে, যারা জেলা ছেড়ে যেতে চেয়েছিল তাদের সবাইকে অল্প সময়ের জন্য বৈধ ৩-জি প্রমাণ উপস্থাপন করতে হয়েছিল।ব্যতিক্রমগুলি হল, অন্যদের মধ্যে, বারো বছরের কম বয়সী শিশু, স্কুলছাত্রী এবং কর্তৃপক্ষ এবং আদালতের সাথে অ্যাপয়েন্টমেন্টের লোক যা স্থগিত করা যায় না। 

ফেডারেল উচ্চ ঘটনা ডিক্রি কার্যকর হয়েছে কারণ সাত দিনের ঘটনা খুব বেশি, উচ্চ অস্ট্রিয়ান(OÖ)নিবিড় পরিচর্যা শয্যা দখল প্রথম গুরুতর বাধা অতিক্রম করেছে এবং শুক্রবার টিকা দেওয়ার হার মাত্র ৫০ শতাংশের নিচে ছিল।  যতদিন সাত দিনের সংক্রমণ এর বেশি হবে ততক্ষণ প্রস্থান নিয়ন্ত্রণ বজায় অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন জেলা ও রাজ্য প্রশাসন। এই জেলায় বর্তমানে প্রতি ১,০০,০০০ লাখ জনপদে করোনায় সংক্রমিত ৩৫৬ জন। এই জেলার সেনা অধিনায়ক ক্যাপ্টেন ক্রোনবার্গার আশা করেন যে টিকা দেওয়ার ক্ষেত্রে শতকরা ৫০ শতাংশ বাধা শীঘ্রই পৌঁছে যাবে: “অন্যথায়, নিয়ন্ত্রণে কয়েক মাস সময় লাগতে পারে।”

আজ অস্ট্রিয়ায় নতুন করে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত হয়েছেন ১,৯০২ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৭ জন। রাজধানী ভিয়েনায় আজ নতুন করে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত হয়েছেন ৪২০ জন। অন্যান্য রাজ্যের মধ্যে OÖ রাজ্যে ৪৭১ জন, NÖ রাজ্যে ৪১০ জন, Steiermark রাজ্যে ২৩৭ জন, Salzburg রাজ্যে ১১৫ জন, Kärnten রাজ্যে ৮৩ জন, Vorarlberg রাজ্যে ৭২ জন, Tirol রাজ্যে ৭০ জন এবং Burgenland রাজ্যে ২৪ জন নতুন করে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত হয়েছেন।

অস্ট্রিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুসারে আজ সমগ্র দেশে করোনার প্রতিষেধক টিকাদান সম্পন্ন করা হয়েছে ১৯,৯৩২ ডোজ এবং এই পর্যন্ত করোনার প্রতিষেধক মোট টিকার পরিমাণ ১,০৭,০৭,০০২ ডোজ।

অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত করোনার প্রতিষেধক টিকার সম্পূর্ণ ডোজ গ্রহণ সম্পন্ন করেছেন মোট ৫৩ লাখ ৪০ হাজার ৮৮৩ জন,যা দেশের মোট জনসংখ্যার শতকরা ৫৯,৮ শতাংশ।

অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৭,২২,৩৫৭ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১০,৮৮৯ জন।করোনার থেকে এই পর্যন্ত আরোগ্য লাভ করেছেন মোট ৬,৮৮,০১৫ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ২৩,৪৫৩ জন। এর মধ্যে আইসিইউতে আছেন ২১১ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ৮৬০ জন।বাকীরা নিজ নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন।

 

 14,605 total views,  1 views today