অস্ট্রিয়ায় নতুন সরকার প্রধান ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর শপথ গ্রহণ

সেবাস্তিয়ান কুর্জের পদত্যাগ সত্ত্বেও আগামীকাল সংসদের বিশেষ অধিবেশনে সরকারের উপর নিন্দা ও অনাস্থা আনতে প্রস্ততি নিয়েছে বিরোধীদল

 কবির আহমেদ, ইউরোপ ডেস্কঃ অস্ট্রিয়ান সংবাদ সংস্থা এপিএ সহ সকল জাতীয় সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছেন আজ অস্ট্রিয়ার রাস্ট্রপতি ভবন হোফবুর্গে অস্ট্রিয়ার ফেডারেল রাস্ট্রপতি আলেকজান্ডার ফান ডার বেলেন নতুন সরকার প্রধান হিসাবে আলেকজান্ডার শ্যালেনবার্গকে শপথ পাঠ করান এবং সরকার প্রধান হিসাবে নিয়োগ পত্রে স্বাক্ষর করেন।

সংবাদ সংস্থা এপিএ জানিয়েছেন সোমবার ১১ অক্টোবর আলেকজান্ডার শ্যালেনবার্গ (ÖVP) অস্ট্রিয়ার নতুন ফেডারেল চ্যান্সেলর(প্রধানমন্ত্রী) হিসাবে শপথ গ্রহণ করেছেন। তিনি স্বেচ্ছায় সদ্য পদত্যাগকারী সাবেক সরকার প্রধান চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জের স্থলাভিষিক্ত হলেন। উল্লেখ্য যে, সাবেক সরকার প্রধান চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জের বিরুদ্ধে বিশ্বাসঘাতকতা এবং ঘুষের তদন্তের কারণে অস্ট্রিয়ান পিপলস পার্টির(ÖVP) শীর্ষ নেতৃবৃন্দের পরামর্শে তিনি সরকার প্রধানের পদ থেকে পদত্যাগ করে অস্ট্রিয়ার জাতীয় সংসদে ÖVP দল নেতা হিসাবে স্থানান্তরিত হন।

এদিকে আজ একই দিনে এবং একই সময়ে সরকার প্রধানের সাথে নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসাবে শপথ নন ফ্রান্সে নিযুক্ত অস্ট্রিয়ার রাস্ট্রদূত মিখাইল লিনহার্ট।তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে একজন সিনিয়র অভিজ্ঞ কূটনৈতিক হিসাবে স্বীকৃত।আজকের এই শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন সরকারের উপ প্রধান ভার্নার কোগলার (Greens)।শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানের পর অস্ট্রিয়ার ফেডারেল রাস্ট্রপতি আলেকজান্ডার ফান ডার বেলেন সরকারকে দায়িত্বের কথা মনে করিয়ে দেন।

রাস্ট্রপতি ফান ডার বেলেন নতুন সরকার প্রধান চ্যান্সেলর শ্যালেনবার্গ এবং ভাইস চ্যান্সেলর ভার্নার কোগলার (গ্রিনস) কে স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, আমি আশা করবো নতুন সরকার দেশের উন্নয়ন প্রকল্পগুলি অব্যাহত রাখবে,যাতে জনগণের আস্থা পুনরুদ্ধার করা সম্ভব হয়। “আমার পক্ষ থেকে, আমি বিশ্বাস করি যে জোটের অংশীদাররা স্থিতিশীল আন্ত সরকার সহযোগিতার জন্য একটি স্থিতিশীল ভিত্তি তৈরি করতে সফল হবে।”

রাস্ট্রপতি এমন চ্যালেঞ্জের কথা স্মরণ করেন যা আর স্থগিত করা যায় না। ফান ডার বেলেন করোনা মহামারী, অর্থনৈতিক ও শ্রম বাজারের সমস্যা, শিক্ষা ও বিজ্ঞান, সামাজিক বিষয়, অস্ট্রিয়ার আন্তর্জাতিক অবস্থান এবং – “সম্ভবত আমাদের সময়ের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ” হিসেবে উল্লেখ করেছেন – জলবায়ু সংরক্ষণ। “এবং অবশ্যই আমাদের একটি সংশ্লিষ্ট ফেডারেল বাজেট দরকার,” বলেছেন ফেডারেল রাস্ট্রপতি।

রাস্ট্রপতি “শীর্ষ কূটনৈতিক” নতুন চ্যান্সেলর আলেকজান্ডার শ্যালেনবার্গকে অগ্রিম প্রশংসা করে বলেন,নতুন ফেডারেল চ্যান্সেলর শ্যালেনবার্গের অফিসের জন্য সর্বোত্তম পূর্বশর্ত ছিল।  একজন শীর্ষ কূটনীতিক এবং প্রাক্তন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসাবে, তিনি একটি সাধারণ ডিনোমিনেটরকে সবচেয়ে বিপরীত অবস্থানে নিয়ে আসতে অভ্যস্ত যা প্রত্যেকের জন্য লাভজনক।  তিনি বলেন, “আমি নিশ্চিত যে অস্ট্রিয়া প্রজাতন্ত্রের নতুন ফেডারেল চ্যান্সেলর হিসেবে আপনার কাজে এই ক্ষমতা আপনার অনেক উপকারে আসবে।”

ফেডারেল প্রেসিডেন্ট আরও জোর দিয়েছিলেন যে শ্যালেনবার্গ ছিলেন একজন কট্টর ইউরোপীয়। ফান ডার বেলেন নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিনহার্টকে আন্তর্জাতিক দৃশ্যের একজন চমৎকার বিশেষজ্ঞ হিসেবে প্রশংসা করেছেন, যিনি বিদেশে অস্ট্রিয়াকে প্রতিনিধিত্ব করতে অভ্যস্ত।

এদিকে অস্ট্রিয়ার রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিভিশন জানিয়েছেন, বিরোধীদলের দাবী অনুযায়ী সাবেক সরকার প্রধান চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জ পদত্যাগ করলেও আগামীকাল মঙ্গলবার পরিকল্পিত অস্ট্রিয়ার জাতীয় সংসদের (পরিষদ) বিশেষ অধিবেশনে বিরোধীদল ÖVP এর নেতৃত্বাধীন সরকারের নিন্দা ও অনাস্থার প্রস্তাব আনতে পারেন।সংবাদে আরও বলা হয়েছে, অস্ট্রিয়ার বিরোধীদল FPÖ বর্তমান ÖVP এর নেতৃত্বাধীন সমগ্র সরকারকেই চ্যালেঞ্জ বা অনাস্থার প্রস্তাব দিতে পারেন

আজ অস্ট্রিয়ায় নতুন করে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত হয়েছেন ১,৩২০ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১০ জন।রাজধানী ভিয়েনায় আজ নতুন করে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত হয়েছেন ২৭৪ জন।

অস্ট্রিয়ার অন্যান্য রাজ্যের মধ্যে OÖ রাজ্যে ২৮৫ জন,  NÖ রাজ্যে ২৫৭ জন, Steiermark রাজ্যে ১৬৫ জন, Salzburg রাজ্যে ১১১ জন, Kärnten রাজ্যে ৯৬ জন, Tirol রাজ্যে ৮০ জন, Vorarlberg রাজ্যে ৩৮ জন এবং Burgenland রাজ্যে ১৪ জন নতুন করে করোনায় আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন।

অস্ট্রিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী আজ করোনার প্রতিষেধক টিকা দেয়া হয়েছে মাত্র ১,৩৬৩ ডোজ এবং এই পর্যন্ত করোনার প্রতিষেধক টিকার মোট পরিমাণ ১,০৯,৫০ ০৩৮ ডোজ। অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত করোনার প্রতিষেধক টিকার সম্পূর্ণ ডোজ গ্রহণ করেছেন মোট ৫৪ লাখ ৭৮ হাজার ৯৮৪ জন,যা দেশের মোট জনসংখ্যার শতকরা ৬১,৩ শতাংশ।

অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৭,৬২,৫৩৮ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১১,১০৬ জন।করোনার থেকে এই পর্যন্ত আরোগ্য লাভ করেছেন মোট ৭,৩১,৬৯৮ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ১৯,৭৩৪ জন। এর মধ্যে  ক্রিটিক্যাল অবস্থার মধ্যে আইসিইউতে আছেন ২১০ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ৮২৯ জন।বাকীরা নিজ নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন।

 

 14,535 total views,  1 views today