অস্ট্রিয়ার তিন রাজ্যে করোনার ওমিক্রোন ভাইরাসের সংক্রমণের আশঙ্কা

করোনার সংক্রমণে অস্ট্রিয়া ইইউর মধ্যে তৃতীয় অবস্থানে আছে বলে জানিয়েছে এজিইএস (AGES) অস্ট্রিয়া

 কবির আহমেদ, ইউরোপ ডেস্কঃ অস্ট্রিয়ান সংবাদ সংস্থা এপিএ জানিয়েছে অস্ট্রিয়ার তিনটি ফেডারেল রাজ্যে ইতিমধ্যেই করোনাভাইরাসের নতুন পরিবর্তিত রূপ ওমিক্রোন ভাইরাস শনাক্তের আশঙ্কা প্রবল জোরদার হচ্ছে।

এপিএ আরও জানায় অস্ট্রিয়ার Tirol রাজ্যে দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ফেরত ব্যক্তির শরীরে নতুন ভাইরাস ওমিক্রোন শনাক্ত হয়েছে এবং তার সংস্পর্শে থাকা আরও দুইজনের শরীরে এই ওমিক্রোন ভাইরাসে আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে। ফলে Tirol রাজ্যে এখন ৩ জন ওমিক্রোন ভাইরাসে আক্রান্ত শনাক্ত হলেন।

এপিএ আরও জানায়, ইতিমধ্যে অস্ট্রিয়ার আরও একাধিক রাজ্যে ওমিক্রোন ভাইরাসে সংক্রমণ শনাক্তের আশঙ্কা করা হচ্ছে। এর মধ্যে OÖ রাজ্যে দুইজন, Salzburg ও Vorarlberg রাজ্যে একজন করে নতুন সুপার ভাইরাস ওমিক্রোনে আক্রান্ত শনাক্ত সন্দেহ করা হচ্ছে।তবে সরকারিভাবে এখনও আক্রান্ত শনাক্ত ঘোষণা করা হয় নি।

Tirol রাজ্যের গভর্নর গুন্থার প্ল্যাটার (ÖVP) মঙ্গলবার রাজ্যের রাজধানী Innsbruck শহরে এক সাংবাদিক সম্মেলনে বলেন বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য অনুযায়ী এই নতুন আবিষ্কৃত বা করোনা ভাইরাসের পরিবর্তিত রূপ ওমিক্রোন খুবই ভয়ঙ্কর একটি ভাইরাস।তার রাজ্যে দেশের মধ্যে প্রথম সংক্রমিত শনাক্তের ব্যাপারে তিনি সকলকে আশ্বস্ত করে বলেন যে, মিউট্যান্টকে “খুব গুরুত্ব সহকারে” নেওয়া হয়েছে, তিনি আরও যোগ করেছেন: “তবে আমাদের আতঙ্কিত হওয়ার দরকার নেই।” দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে ফেরত আসা যাত্রীদের অন্যান্য সমস্ত পরীক্ষার ফলাফল নেগেটিভ। প্ল্যাটারের মতে, রাজ্যের শোয়াজ জেলায় ওমিক্রোন ভাইরাসে আক্রান্ত তিনজনকে বিশেষ ব্যবস্থায় রাখা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে গভর্নর গুন্থার প্ল্যাটার এবং স্বাস্থ্য কাউন্সিলর অ্যানেট লেজা (ÖVP) পুনরায় রাজ্যে সকলকে টিকা দেয়ার গুরুত্বের উপর জোর দিয়েছেন।গভর্নর বলেন, করোনার প্রতিষেধক টিকাই একমাত্র জিনিস যা এই মুহূর্তে আমাদের এই অবস্থায় সাহায্য করতে পারে।

এদিকে অস্ট্রিয়ার স্বাস্থ্য ও খাদ্য নিয়ন্ত্রণ সংস্থা এজিইএস (AGES) জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের দেশ সমূহের মধ্যে করোনার সংক্রমণের বিস্তারে অস্ট্রিয়া এখন শীর্ষ তিন দেশের মধ্যে রয়েছে।সংস্থাটি জানায় গত ১৪ দিনে অস্ট্রিয়ায় প্রতি এক লাখ জনপদে করোনায় আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ১,৯৯২ জন।

অন্যদিকে একই সময়ে অস্ট্রিয়ার প্রতিবেশী স্লোভাকিয়ায় ২,০৩৮ জন এবং আরেক প্রতিবেশী স্লোভেনিয়ায় ২,১৩৭ জন। ইইউর অন্যান্য আরও কয়েকটি দেশে গত ১৪ দিনে প্রতি ১,০০,০০০ লাখ জনপদে করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে ইতালিতে ১৭৫ জন, স্পেনে ১৩২ জন এবং সুইডেনে ১২৫ জন।

অস্ট্রিয়ার মধ্যে প্রতি এক লাখ জনপদে বর্তমানে করোনায় আক্রান্তে শীর্ষে রয়েছে Salzburg রাজ্যে ৩,২৩৭ জন এবং আপার অস্ট্রিয়ায় ৩,২০১ জন।

এপিএ আরও জানায়, অস্ট্রিয়ার মত এমন একটি সুসজ্জিত স্বাস্থ্য ব্যবস্থা সম্পন্ন দেশে করোনার আইসিইউ রোগীর সংখ্যা প্রায় ৬৫০ জনের কাছাকাছি।অস্ট্রিয়ার পরিসংখ্যান বিষয়ক সংস্থা এজেন্ডা(AGENDA) অস্ট্রিয়ার পরিচালক ফ্রাঞ্জ শেলহর্ন বলেছেন, “এটি ব্যর্থ রাষ্ট্র যা এই দেশের বাসিন্দাদের এই বিধ্বংসী পরিস্থিতিতে নিয়ে এসেছে।” ঘাটতি পরিচালনা করা হয়, সমাধান করা হয় না।যা করা হয় তাই সুবিধাজনক মনে হয়, যা প্রয়োজন তা নয়।দলীয়-রাজনৈতিক হিসাব-নিকাশই সব কর্মের কেন্দ্রবিন্দুতে। এটি অস্ট্রিয়াকে শীর্ষ ইউরোপীয় ক্ষেত্রে একটি সন্দেহজনক অবস্থান দিয়েছে।

আজ অস্ট্রিয়ায় করোনায় নতুন করে সংক্রমিত শনাক্ত হয়েছেন ৮,১৮৬ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৬৭ জন।রাজধানী ভিয়েনায় আজ নতুন করে করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত হয়েছেন ৯৩৬ জন।

অস্ট্রিয়ার অন্যান্য ফেডারেল রাজ্যের মধ্যে OÖ রাজ্যে ১,৭৫৪ জন, Steiermark রাজ্যে ১,২৯০ জন, NÖ রাজ্যে ১,২৮৭ জন, Tirol রাজ্যে ৯৪৬ জন, Kärnten রাজ্যে ৭২৩ জন, Salzburg রাজ্যে ৫৪৫ জন, Vorarlberg রাজ্যে ৫২০ জন এবং Burgenland রাজ্যে ১৮৫ জন।

অস্ট্রিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী আজ সমগ্র দেশে করোনার প্রতিষেধক টিকার প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছে ৭,৯২৩ ডোজ।অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত করোনার প্রতিষেধক টিকার সম্পূর্ণ ডোজ গ্রহণ করেছেন মোট ৫৯,৬৪,৮৮৬ জন,যা দেশের মোট জনসংখ্যার শতকরা ৬৬,৮ শতাংশ।

অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১১,৫৯,৯৯৫ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১২,৪৯২ জন। করোনার থেকে এই পর্যন্ত আরোগ্য লাভ করেছেন মোট ১০,০৭,৯০৯ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ১,৩৯,৫৯৪ জন। এর মধ্যে আইসিইউতে আছেন ৬৪২ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ৩,৪৫৮ জন। বাকীরা নিজ নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন।

 14,660 total views,  1 views today