পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেনের সাথে হাঙ্গেরির পররাষ্ট্রমন্ত্রী পিটার সিজ্জার্তোর বৈঠক অনুষ্ঠিত

দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী উভয় দেশের পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়াদি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা করেন

কবির আহমেদ, ইউরোপ ডেস্কঃ অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস ও স্থায়ী মিশনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এখানে উল্লেখ্য যে,হাঙ্গেরিতে বাংলাদেশের কোন দূতাবাস নাই। অস্ট্রিয়ায় অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস ও স্থায়ী মিশন হাঙ্গেরিতে অনাবাসী দূতাবাসের কাজ করে আসছে।

দূতাবাস ও স্থায়ী মিশনের তথ্য বিবরণীতে আরও বলা হয়েছে পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা নিজেদের মধ্যে অর্থনৈতিক সহযোগিতা, স্বাস্থ্য, জলবায়ু পরিবর্তন, পানি ও বর্জ্য-জল ব্যবস্থাপনা, পোস্ট-গ্রাজুয়েশন সুবিধা, পারমাণবিক শক্তি এবং কোভিড-পরবর্তী পুনরুদ্ধার এবং বাণিজ্য ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে সম্পর্ক গভীর করতে সম্মত হয়েছেন।

তাছাড়াও মন্ত্রীরা দুটি সমঝোতা স্মারকে স্বাক্ষর করেছেন। তার মধ্যে একটি পারমাণবিক শক্তির শান্তিপূর্ণ ব্যবহারে পারমাণবিক শিল্পের প্রশিক্ষণ ও শিক্ষা ক্ষেত্রে সহযোগিতা এবং আরেকটি কূটনৈতিক কর্মসূচী বিনিময়ের।

ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরামের (সিভিএফ) অবিলম্বে অতীতের চেয়ার হিসেবে বৈশ্বিক জলবায়ু আলোচনায় বাংলাদেশের নেতৃত্বের ভূমিকার কথা উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.আবদুল মোমেন বলেন প্যারিস জলবায়ু চুক্তি বাস্তবায়নে আরও সহায়তা জোগাড় করার জন্য তার হাঙ্গেরির প্রতিপক্ষকে সহযোগিতার প্রসারিত করার অনুরোধ করেছেন। দুই মন্ত্রী পরিচ্ছন্ন ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি খাতে সহযোগিতা করতেও সম্মত হয়েছেন।

তারা পারমাণবিক শক্তির ক্ষেত্রে ভবিষ্যত সহযোগিতার পথ নিয়ে আলোচনা করেছেন। কেননা বাংলাদেশ এবং হাঙ্গেরি উভয়ই নিজ নিজ নতুন পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য একই প্রযুক্তি ব্যবহার করছে। তারা পারমাণবিক শক্তি পেশাদারদের প্রশিক্ষণ ও শিক্ষার বিষয়ে একমত হয়েছেন।

মন্ত্রীরা হাঙ্গেরিয়ান স্কলারশিপ (স্টিপেনডিয়াম হাঙ্গারিকাম) প্রোগ্রামের কাঠামোর মধ্যে সফল চলমান সহযোগিতার জন্য সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন, যা হাঙ্গেরির বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে স্নাতক, স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর অধ্যয়ন করার জন্য বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের প্রতি বছর ১৪০ টি বৃত্তি প্রদান করে থাকে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.আবদুল মোমেন মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের দ্রুত ও টেকসই প্রত্যাবাসনের জন্য বহুপাক্ষিক ফোরামে সমর্থন অব্যাহত রাখার জন্য হাঙ্গেরির পররাষ্ট্রমন্ত্রী পিটার সিজ্জার্তোকে আবারও অনুরোধ করেছেন। হাঙ্গেরির পররাষ্ট্র মন্ত্রী গত ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর মাসে তার বাংলাদেশ সফরের কথা করে আতিথিয়তার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। তাছাড়াও তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অনুকরণীয় আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের প্রশংসা করেছেন।

হাঙ্গেরির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ঘোষণা করেছেন যে ঢাকায় হাঙ্গেরির কনস্যুলার অফিস এখন থেকে একটি পূর্ণাঙ্গ কনস্যুলার সুবিধা হিসেবে কাজ করবে। উভয় মন্ত্রীই অদূর ভবিষ্যতে ঢাকা ও বুদাপেস্টে আবাসিক মিশন খোলার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.আবদুল মোমেন হাঙ্গেরির নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর অরবানকে সম্বোধন করা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটি বিশেষ বার্তা মন্ত্রী সিজ্জার্তোর কাছে হস্তান্তর করেছেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা ২০২২ সালের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী অরবানের বাংলাদেশে একটি সম্ভাব্য সফর নিয়ে কাজ করতে সম্মত হয়েছেন।

এদিকে হাঙ্গেরির রাজধানী বুদাপেস্টে উভয় পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠকের পূর্বে ভিয়েনা বাংলাদেশ দূতাবাস ও স্থায়ী মিশনের উদ্যোগে বুদাপেষ্ট শহরে অধ্যায়নরত বাংলাদেশী ছাত্র ছাত্রীদের জন্য মান্যবর রাষ্ট্রদূত জনাব মুহিত সাহেবের সভাপতিত্বে কনসুলার জনাব রাহাতের সঞ্চালনায় এক আলোচনা সভা ও মুক্ত প্রশ্ন উত্তর পর্বের আয়োজন করা হয়। প্রধান অতিথি ছিলেন সফররত মাননীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রী জনাব ড. এ কে আবদুল মোমেন, আরো উপস্থিত ছিলেন হাংগেরি সরকারের সচিব মেকবিনিচ লেংগেল।

হাঙ্গেরিতে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীদের সমস্ত প্রশ্নের জবাব দেন মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আবদুল মোমেন । প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার পূর্বে বর্তমান বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন বিভাগের উন্নয়নের একটি সংক্ষিপ্ত ব্যাখ্যা দেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসী পদক্ষেপের কারনে দেশ আজ সোনার বাংলায় রুপান্তরিত হতে চলেছে বলে জানান তিনি।

উপস্থিত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে তিনি বলেন ভালব জ্বলেনা বিদ্যুৎ ব্যতিরেকে তেমনি শিক্ষা ব্যতীত কোন জাতি প্রতিষ্ঠিত হতে পারেনি । আপনারা লেখাপড়া শেষ করে দেশে আসুন, দেশের জন্য কাজ করুন তবেই জাতি আপনাদেরকে স্মরণ করবে চিরকাল।

 

হাঙ্গেরি সফররত পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.আবদুল মোমেন দেশের উন্নয়নে অবদান রাখতে সকল প্রবাসীদের প্রতিও এক উদাত্ত আহবান জানান। গতকাল মঙ্গলবার (৭ জুন) বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা বলা হয়েছে। হাঙ্গেরির বুদাপেস্টে ম্যাথিয়াস করভিনাস কলেজিয়ামে বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে ভাষণ দেওয়ার সময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী শিক্ষার্থীদের অনুসন্ধিৎসু, উদ্ভাবনী ও মানবজাতির বৃহত্তর কল্যাণে আবেগপ্রবণ হওয়ার পরামর্শ দেন।

এসময় হাঙ্গেরির পররাষ্ট্র ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক প্রশিক্ষণ কর্মসূচির ডেপুটি স্টেট সেক্রেটারি মিক্লোস লেঙ্গেল এবং হাঙ্গেরিতে বাংলাদেশের অনাবাসী রাষ্ট্রদূত মুহাম্মদ আবদুল মুহিতও শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন।

ড. মোমেন আধুনিক ও প্রযুক্তিগত জ্ঞানে উদ্বুদ্ধ একটি জ্ঞানভিত্তিক উন্নত ও সমৃদ্ধ জাতি গঠনে বাংলাদেশের বর্তমান সরকারের অঙ্গীকার তুলে ধরেন। তিনি যুবকদের যথাযথ জ্ঞান ও দক্ষতা দিয়ে দক্ষ করার গুরুত্বের ওপর জোর দেন এবং শিক্ষার্থীদের দেশীয় ও স্থানীয় চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার জন্য বিজ্ঞান, প্রযুক্তি এবং উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে অসংখ্য সুযোগ গ্রহণের পরামর্শ দেন।

বাংলাদেশে উচ্চ প্রযুক্তির শিল্পের রূপান্তরের কথা উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী শিক্ষার্থীদের ধারণা ও উদ্ভাবনে সজ্জিত করার পরামর্শ দেন এবং বাংলাদেশকে সোনার বাংলায় পরিণত করার বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণে কঠোর পরিশ্রম করার পরামর্শ দেন।

২০১৯ সাল থেকে হাঙ্গেরিকাম স্টিপেনডিয়াম প্রোগ্রামের আওতায় বিখ্যাত হাঙ্গেরীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক, স্নাতকোত্তর এবং পিএইচডি করার জন্য বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের বার্ষিক ১৪০টি পূর্ণ বৃত্তি প্রদানের জন্য পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাঙ্গেরি সরকারের প্রশংসা করেন।

হাঙ্গেরির রাজধানী বুদাপেষ্টে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড.আবদুল মোমেনের আগমন উপলক্ষে অস্ট্রিয়া আওয়ামী লীগের সভাপতি খন্দকার হাফিজুর রহমান নাসিমের নেতৃত্বে একটি দল বুদাপেষ্টে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাত করেছেন। অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনা থেকে হাঙ্গেরির রাজধানী বুদাপেষ্টের গাড়ির রাস্তার দূরত্ব প্রায় তিন ঘণ্টার (প্রায় ২৫৩ কিলোমিটার)।

 17,511 total views,  1 views today