১৫ ই জুন থেকে অস্ট্রিয়ান এয়ারলাইন্স পুনরায় আকাশে উড়বে

নিউজ ডেস্কঃ আগামী১৫ ই জুন থেকে অস্ট্রিয়ান এয়ারলাইন্স পুনরায় আকাশে উড়তে শুরু করবে ।  তবে দূরপাল্লার ফ্লাইট চালু হবে  জুলাই মাসের মাঝামাঝি সময়ে। শুরুতে অস্ট্রিয়ান এয়ারলাইন্স ছোট বিমান দিয়ে ছোট পরিসরে তাদের উড্ডয়নের পরিকল্পনা করছে। প্রথম দিন তারা লন্ডন,ব্রাসেলস ও প্যারিস তাদের ফ্লাইট দিয়ে যাত্রা শুরু করবে বলে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে বলা হয়েছে।           

করোনায় লক ডাউনের ফলে প্রায় তিন মাস ভূমিতে অবস্থানের পর বিমানগুলি এখন পুনরায় ১৫ জুন থেকে ধীরে ধীরে আকাশে উড়বে। অস্ট্রিয়ান এয়ারলাইন্সের জনৈক মুখপাত্র আজ ভিয়েনায় এক প্রেস ব্রিফিংয়ে একথা জানান। তিনি জানান,১৫ জুন থেকে কিছু বিধিনিষেধ সাপেক্ষে আমরা ছোট খাটো পরিসরে ৩৭ টি গন্তব্যে আমাদের ফ্লাইট পরিচালনা করবো এবং এর জন্য আমরা আমাদের ছোট এয়ার ক্রাফটগুলি ব্যবহার করবো। আমাদের প্রথম ফ্লাইট সমূহ ভিয়েনা-লন্ডন-ভিয়েনা, ব্রাসেলস ও প্যারিসের মধ্যে চলাচল করবে। আমাদের দূরপাল্লার ফ্লাইট সম্পর্কে আমরা এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় নি তবে আশা করছি জুলাই মাসের মাঝামাঝি সময়ে শুরু করা হতে পারে। উল্লেখ্য যে, অস্ট্রিয়ান এয়ারলাইন্সের সর্বশেষ ফ্লাইটটি গত ১৯ মার্চ ভিয়েনায় অবতরমের মধ্য দিয়ে অস্ট্রিয়ান এয়ারলাইন্স তার উড্ডয়ন ও অবতরণ স্থগিত রাখে।

অস্ট্রিয়ান এয়ারলাইন্সের পার্টনার লুফথানসা ও সুইস এয়ারলাইন্স করোনায় তাদের কার্যক্রম পুরোপুরি বন্ধ করে নি। অস্ট্রিয়ান এয়ারলাইন্সের ৬০ বৎসরের ইতিহাসে এবারই প্রথমবারের মতো সে তার সম্পূর্ণ কার্যক্রম স্থগিত করেছিল। অস্ট্রিয়ান এয়ারলাইন্সের বহরে ছোট বড় মিলিয়ে ৮৪ টি এয়ার ক্রাফটস রহিয়াছে। পরিকল্পনা অনুযায়ী অস্ট্রিয়ান এয়ারলাইন্স প্রথম দিন লন্ডন,প্যারিস এবং ব্রাসেলসের মধ্যে যাতায়াত করবে।                            

তারপর প্রথম সপ্তাহে পর্যায়ক্রমে আমস্টারডাম, অ্যাথেন্স, বাজেল , বার্লিন, বুখারেস্ট, ডুব্রোভনিক, ড্যাসেল্ডার্ফ, ফ্রাঙ্কফুর্ট, জেনেভা, হামবুর্গ, কোপেনহেগেন, লারনাকা, মিউনিখ, প্রিস্টিনা, সারাজেভো, স্কোপজে, সোফিয়া, স্টকহোম, স্টটগার্ট, তেলসিভন, বার্ণ এবং জুরিখের মধ্যে যাতায়াত করবে। ২২ শে জুন থেকে দ্বিতীয় সপ্তাহে বেলগ্রেড, গ্রাস, ইনসব্রুক, কিয়েভ, কোসিস, মিলান, নিস, প্রাগ, স্প্লিট এবং ওয়ারশ যুক্ত হবে। প্রাথমিকভাবে, এমব্রেরার ১৯৫ এবং ড্যাশ ৪ এর মতো প্রধানত ছোট এয়ার ক্রাফটস গুলি ব্যবহৃত হবে।                     

করোনার ফলে নতুন বিধিনিষেধ অনুযায়ী বিমানে ভ্রমণকারী যাত্রীদের অবশ্যই মুখ ও নাকের সুরক্ষা বন্ধনী বা মাস্ক পড়তে হবে। তবে বিমানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে না। কেননা বিমানে শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ও জীবাণু নাশক স্প্রে করার কারণে বিমাণের অভ্যন্তরে করোনার সংক্রমণের সম্ভাবনা খুবই কম থাকবে বলে জানানো হয়েছে।

 5,722 total views,  1 views today