করোনায় আক্রান্ত পাকিস্তানী যুবকের রেলজেট ট্রেনে ভিয়েনা থেকে Tirol ভ্রমণ

 অন লাইন ডেস্ক থেকে,কবির আহমেদঃ ২৫ বৎসর বয়স্ক এক পাকিস্তানী নাগরিক সম্প্রতি পাকিস্তান  থেকে ছুটি কাটিয়ে করোনা ভাইরাস শরীরে নিয়ে অস্ট্রিয়ায় ফেরত এসেছেন। অস্ট্রিয়ান কর্তৃপক্ষ তার সংক্রমণ কথা নিশ্চিত হওয়ার পর এখন থেকে সাবধানতা অবলম্বন করেছেন। Tirol প্রশাসনের উদ্ধৃতি দিয়ে অস্ট্রিয়ান সংবাদ সংস্থা এপিএ জানান,গত ৮ ই জুন অস্ট্রিয়ার Tirol প্রদেশের Telfs জেলায় বসবাসকারী উক্ত পাকিস্তানী নাগরিক ছুটি থেকে ফেরত এসে করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত হট লাইনে ফোন করে বলেন যে, তিনি পাকিস্তান থেকে ফেরত এসে কিছুটা অস্বস্তি বোধ করছেন এবং খাদ্যদ্রব্য গ্রহণে কোন স্বাদ ও গন্ধ অনুভব করতে পারছেন না। তখন যথাযথ কর্তৃপক্ষ তার নমুনা পরীক্ষা করে রিপোর্ট পজিটিভ পান।                        

কর্তৃপক্ষ এই ব্যাপারে নিশ্চিত হয়েছেন যে তিনি পাকিস্তানেই করোনা ভাইরাসের কভিট-১৯ এ সংক্রমিত হয়েছেন। আক্রান্ত ব্যক্তি বর্তমানে Innsbruck হাসপাতালে চিকিত্সাধীন অবস্থায় আছেন। অস্ট্রিয়ান কর্তৃপক্ষ সংবাদ সংস্থাকে জানিয়েছেন যে কথিত ব্যক্তি গত ৮ জুন কাতার এয়ারওয়েজের মাধ্যমে ভিয়েনায় অবতরণ করেন কিন্তু তার শরীরে জ্বর না থাকায় পাকিস্তান, কাতার এবং ভিয়েনা বিমানবন্দরের স্ক্যানিং এ ধরা পড়ে নি। তারপর তিনি ভিয়েনা বিমানবন্দর থেকে ÖBB রেলজেট ট্রেনের মাধ্যমে Tiroler এর রাজধানী Innsbruck পর্যন্ত প্রায় ৫ ঘন্টার ট্রেন ভ্রমণ করেছিলেন।                                                     

অবশ্য পাকিস্তানী উক্ত নাগরিক প্রশাসনকে জানিয়েছেন যে, তিনি সম্পূর্ণ ভ্রমণে মাস্ক ব্যবহার করেছেন এবং যথাযথ সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেছিলেন। অস্ট্রিয়ার Tirol প্রদেশের প্রশাসন তার করোনার উপসর্গ নিয়ে ভ্রমণের বিষয়টি অস্ট্রিয়ান ফেডারেল রেলওয়ে (ÖBB) এবং কাতার এয়ারওয়েজ কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অফিসিয়ালি চিঠির মাধ্যমে অবহিত করেছেন বলে সংবাদ সংস্থা এপিএ কে নিশ্চিত করেছেন। তারা ভবিষ্যতে ভ্রমণে যাত্রীদের শারীরিক অবস্থার ব্যাপারে আরও সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।                                                   

এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় অস্ট্রিয়ায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা কিছুটা বেড়ে গিয়ে ৫২ এ পৌছিয়াছে। তবে গত দুইদিন করোনায় কেহ মৃত্যু বরণ করেন নি। অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১৭,৩২৩ জন এবং মৃত্যু বরণ করেছেন ৬৮৮ জন। করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১৬,১৭৫ জন। করোনায় ক্রিটিক্যাল বা আইসিইউতে আছেন মাত্র ৮ জন এবং হাসপাতালে চিকিত্সাধীন অবস্থায় আছেন ৭৬ জন।

 5,784 total views,  1 views today