অস্ট্রিয়ায় করোনার এক মিলিয়ন অর্থাৎ দশ লাখ টেস্ট সম্পন্ন হয়েছে – স্বাস্থ্যমন্ত্রী

 অন লাইন ডেস্ক থেকে,কবির আহমেদঃ আজ ভিয়েনায় অস্ট্রিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী রুডল্ফ আনস্কোবার প্রতিদিনের স্বাস্থ্যমন্ত্রনালয়ের করোনা ব্রিফিংয়ে নিজে উপস্থিত হয়ে প্রথমেই বলেন,আজ আমার কাছে একটি দুঃসংবাদ আছে। তিনি বলেন, গত ২৪ ঘন্টায় অস্ট্রিয়ায় করোনায় নতুন করে সংক্রমিত হয়েছেন ২৮২ জন যার মধ্যে রাজধানী ভিয়েনায় ১১২ জন। তারপর তিনি জানান অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত আমরা ১০ লক্ষ ৩ হাজার ৪৩২ জনের করোনা টেস্ট করিয়াছি। ফলে সহজেই বুঝা যায় যে আমাদের স্বাস্থ্যমন্ত্রনালয় করোনা মহামারী বিস্তৃতি রোধে সর্বাধিক তৎপর রয়েছেন। আমরা করোনার প্রাদুর্ভাবের প্রথম থেকেই যথাসাধ্য চেষ্টা করছি যাতে সংক্রমিত রোগীকে দ্রুত সনাক্ত করে অন্যদের থেকে পৃথক রাখা যায়।                                              

তিনি বলেন,করোনার প্রাথমিক প্রাদুর্ভাবের সময় গত ৪ এপ্রিল থেকে ১৩ এপ্রিলের মধ্য অর্থাৎ প্রায় দশ দিনে অস্ট্রিয়াতে প্রায় ৫০,০০০ হাজার লোকের করোনা টেস্ট সম্পন্ন করা হয়েছে। বর্তমানে এখন দশ দিনে এই টেস্ট ৮১,০০০ হাজারে উন্নীত করা হয়েছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও জানান,করোনার প্রথম প্রাদুর্ভাবের সময় অস্ট্রিয়ায় সাধারণত প্রবীণরা আক্রান্ত হয়েছিলেন কিন্ত বর্তমানে ১৫ থেকে ২৪ বৎসর বয়সী তরুণরা বেশী পরিমাণে আক্রান্ত হতে দেখা যাচ্ছে। মন্ত্রী আরও জানান বর্তমানে এক গবেষণায় দেখা গেছে অস্ট্রিয়ায় করোনায় আক্রান্ত মানুষের মধ্যে শতকরা ২৪% মানুষের মাঝে করোনার কোন উপসর্গ ছিল না। তারা অন্য কোন সমস্যার কারনে বা স্বেচ্ছায় পরীক্ষার পর টেস্টে পজিটিভ হয়েছেন।                             

এদিকে আজ দুপুরে অস্ট্রিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উদ্ধৃতি দিয়ে অস্ট্রিয়ান সংবাদ সংস্থা জানিয়েছেন যে,অস্ট্রিয়ান নাগরিকদের জন্য ক্রোয়েশিয়া ভ্রমণের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে এবং এখনও যারা সেখানে অবস্থান করছেন তাদেরকেও দ্রুত দেশে ফেরত আসার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এপিএ আরও জানান বর্তমানে সতর্কতা সংকেত ৪ (চার) জারি করা হয়েছে। সতর্কতা ৪ এর অর্থ হল সে দেশে এখন ভ্রমণ উচ্চ সুরক্ষার ঝুঁকিপূর্ণ । একেবারে জরুরী প্রয়োজন ছাড়া ভ্রমণ করতে বারণ করা হয়েছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সাধারণত নিম্নলিখিত কারণগুলির জন্য নিষেধাজ্ঞা ৪ জারি করে থাকেন। এই কারণগুলির মধ্যে প্রাণহানীকর সহিংস সংঘর্ষ, সন্ত্রাসী হামলার উচ্চ ঝুঁকি, প্রাকৃতিক দুর্যোগ (আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরণ, ভূমিকম্প, বন্যা) এবং ব্যক্তিগত আঘাত এবং সম্পত্তির ক্ষতি বা মহামারীর সংক্রমণসহ শিল্প দুর্ঘটনা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। সতর্কতার সর্বোচ্চ স্তর হল ৬। সতর্কতার সর্বোচ্চ সংকেত ৬ জারি করা হলে সে দেশে ভ্রমণ সম্পূর্ণ নিষেধ করা হয়। বর্তমান বাংলাদেশের উপর অস্ট্রিয়ার ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা ৬ জারি অব্যাহত আছে।       

অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২২,৮৭৬ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৭২৫ জন। করোনার থেকে আরোগ্য লাভ করেছেন ২০,৪৯৯ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ১,৬৫২ জন। এর মধ্যে আইসিইউতে আছেন ১৯ জন এবং হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি আছেন ১১০ জন। অবশিষ্টরা নিজ বাসায় আইসোলেশনে আছেন।
 

 7,015 total views,  1 views today