করোনা নিয়ে অস্ট্রিয়ান সরকার পুন:রায় বড় চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি !

 অন লাইন ডেস্ক থেকে,কবির আহমেদঃ অস্ট্রিয়ার সরকার প্রধান সেবাস্তিয়ান কুর্জ এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী রুডল্ফ আনস্কোবার আগামী সপ্তাহে দেশে করোনার নতুন নীতিমালা ঘোষণা করবেন।

এখন প্রতিদিন করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে। অস্ট্রিয়ার অবকাশ যাপনকারীরা পুনরায় দেশে ফিরছেন এবং দুই মাস গ্রীষ্মের ছুটির পর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পুনরায় খুলে দেওয়া হচ্ছে। তাই সরকারকে অত্যন্ত সতর্কতার সাথে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী রুডল্ফ আনস্কোবার আগামী মঙ্গলবার করোনার বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে সরকারের নতুন পরিকল্পনা সম্পর্কে আলোকপাত করবেন। তিনি বলেন,আগামী দিনগুলিতে আমরা পুনরায় “বড় চ্যালেঞ্জ” মুখোমুখি হতে যাচ্ছি। তিনি আগামী সপ্তাহে সরকারের কিছু পরিকল্পনার কথা জানান,

সোমবার সন্ধ্যায় (২১:০৫) ফেডারেল চ্যান্সেলর  সেবাস্তিয়ান কুর্জ রাস্ট্রীয় টেলিভিশন ORF এ উপস্থিত হয়ে দেশের করোনার পরিস্থিতি সম্পর্কে সরকার নীতিমালার ঘোষণা দিবেন।

মঙ্গলবার সকাল ১০.৩০ মিনিটে, স্বাস্থ্যমন্ত্রী রুডল্ফ আনসকোবর তার স্বাস্থ্যমন্ত্রনালয়ের গৃহীত বিভিন্ন পদক্ষেপ জনগণের সামনে বিস্তারিতভাবে উপস্থাপন করবেন। তিনি আরও জানান অস্ট্রিয়ার অন্যতম প্রতিবেশী রাষ্ট্র হাঙ্গেরি ১ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার থেকে বিদেশীদের জন্য তার সীমানা বন্ধ করেছে। তারপরে প্রত্যাবর্তনকারী লোকদের ১৪ দিনের জন্য আমাদের প্রতিবেশী দেশে হোম কোয়ারান্টিনে থাকতে হবে। আপনি কেবল দুটি নেতিবাচক করোনার পরীক্ষা উপস্থাপন করে এড়াতে পারবেন। বিশেষত নার্স এবং বিক্রয় কর্মীদের জন্য যারা বুর্গেনল্যান্ডে কাজ করেন, তাদের জন্য শ্রমসাধ্য সীমান্ত অতিক্রমের ঝুঁকি রয়েছে।

অস্ট্রিয়ার জোট সরকার বুধবার মন্ত্রিপরিষদ কর্তৃক করোনার সম্পর্কিত কিছু বিধিনিষেধ কঠোর করণের বিষয়ে একমত হতে চায়। তাছাড়াও সম্ভবত স্টেডিয়ামে খেলা দেখতে ১০,০০০ হাজার দর্শকের উপস্থিতির অনুমোদন দেওয়া হতে পারে। অবশ্য পূর্বে বলা হয়েছিল সেপ্টেম্বর থেকে ১ লক্ষ দর্শকের অনুমতি দেওয়া হবে।

অস্ট্রিয়ার নতুন “করোনার ট্র্যাফিক লাইট” শুক্রবার থেকে শুরু হবে। দেশের প্রতিটি জেলায় ভাইরাসের ঝুঁকিপূর্ণ পরিস্থিতি পর্যালোচনার পর সবুজ, হলুদ, কমলা বা লাল রঙে চিন্হিত করে প্রয়োজনীয় কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

এদিকে আজ অস্ট্রিয়ায় করোনার সংক্রমণ কিছুটা কম সনাক্ত হয়েছে এবং আজও কেহ মৃত্যুবরণ করেন নি। আজ নতুন করে করোনায় সনাক্ত হয়েছেন ১৮১ জন,যার মধ্যে রাজধানী ভিয়েনাতে সনাক্ত হয়েছেন ৫১ জন। এই পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২৭,১৬৬ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৭৩৩ জন। করোনার থেকে আরোগ্য লাভ করেছেন ২৩,০৭০ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৩,৩৬৩ জন। এর মধ্যে ক্রিটিক্যাল অবস্থায় আছেন ৩০ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ১৪০ জন। বাকীরা নিজ নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন।

 7,461 total views,  1 views today