অস্ট্রিয়ায় করোনার লাইট সিস্টেম প্রবর্তনের ফলে ব্যাপক সমালোচনার মুখে সরকার !

 অন লাইন ডেস্ক থেকে,কবির আহমেদঃ অস্ট্রিয়ার সরকার প্রধান চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জ বলেছেন ভবিষ্যতে করোনার “ট্র্যাফিক আলো আমাদের গাইড করবে”যে আমরা করোনার কোন পর্যায়ের মধ্যে আছি এবং আমাদের করণীয় কি?

করোনার ট্র্যাফিক লাইট প্রবর্তনের পর থেকে ব্যাপক সমালোচনার পর উত্তপ্ত পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে তিনি আরও বলেন “নতুন জিনিসগুলি সর্বদা অপরিচিত এবং আমি বুঝতে পেরেছি যে প্রভাবিত শহর এবং জেলা এবং দায়ীদের পক্ষে এটি মেনে নেয়া কিছুটা কঠিন তবে এটি আমাদের জন্য খুবই প্রয়োজনীয় এবং এটি আমাদেরকে মহামারীটির সাথে সফলতার সাথে লড়াই চালিয়ে যেতে সহায়তা করবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

“ট্র্যাফিক লাইট সম্পর্কে তিনি আরও বলেন,এই লাইটিং এর মাধ্যমে দেশব্যাপী করণীয় ব্যবস্থা এবং করোনা কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী কঠোর পদক্ষেপ বা বিধিনিষেধ আরোপ করা সহজতর হবে করোনার ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চল সমূহে। তিনি আরও উল্লেখ করেন প্রতি এক লাখে বিশ জন নতুন কর করোনা ভাইরাসের দ্বারা সংক্রমিত হলে সেই অঞ্চলকে সবুজ থেকে হলুদ রঙে স্থানান্তরিত করা হবে।

এদিকে স্বাস্থ্যমন্ত্রী রুডল্ফ আনস্কোবার করোনার ট্র্যাফিক লাইট সিস্টেমের সমালোচনায় বলেন, এটি কোন স্থায়ী প্রকল্প না। তিনি বলেন,করোনার হলুদ লাইটিং এ আমাদের সবচেয়ে জরুরী করণীয় হলো মাস্ক পড়া নিশ্চিত করা যাতে ভাইরাসটির সংক্রমণের বিস্তার রোধ দ্রুত হ্রাস পায়। তিনি জানান আগামী শুক্রবার করোনা কমিশনের পরবর্তী বৈঠকে হলুদ ঘোষিত অঞ্চলে মাস্ক পড়ার নিয়ম “আইনতভাবে বাধ্যতামূলক করার সুপারিশ করা হবে। তিনি বলেন, আমরা এতদিন মাস্ক পড়ার ব্যাপারে শুধুমাত্র অনুরোধ করে আসছি কিন্ত আইন ব্যতীত পুরোপুরি কার্যকর করা বেশ দূরহ।

আগামীকাল থেকে Vienna,Niederösterreich ও Burgenland রাজ্যে নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরু হতে যাচ্ছে। রাজধানী ভিয়েনা রাজ্যকে যেহেতু হলুদ জোন করা হয়েছে তাই শিশুদের স্কুলে মাস্ক পড়ার নিয়ম পুনরায় প্রবর্তন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আজ অস্ট্রিয়ায় নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ১৮৪ জন। আজ করোনায় ১ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। এই পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২৯,২৭১ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৭৩৬ জন। করোনার থেকে আরোগ্য লাভ করেছেন ২৫,০৪৩ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৩,৪৯২ জন। এর মধ্যে ক্রিটিক্যাল অবস্থায় আছেন ২৮ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ১৪৩ জন। অবশিষ্টরা চিকিৎসকের পরামর্শে নিজ নিজ বাসায় আইসোলেশনে আছেন।

 7,196 total views,  1 views today