অস্ট্রিয়ায় করোনায় হোটেল-রেস্টুরেন্ট এবং ব্যক্তিগত অনুষ্ঠানে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ !

ধর্মীয় অনুষ্ঠানে বিধিনিষেধ নেই তবে মাস্ক ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে

 সমাচার ডেস্ক থেকে,কবির আহমেদঃ গত দুই সপ্তাহ যাবৎ অস্ট্রিয়ায় করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ আশঙ্কাজনক বৃদ্ধির ফলে করোনা ট্র্যাফিক কমিশনের সুপারিশ ক্রমে সরকার আজ করোনার সংক্রমণ বিস্তার রোধে হোটেল-রেস্টুরেন্ট এবং ব্যক্তিগত ইভেন্টে কিছুটা কঠোরতার ঘোষণা দিয়েছেন। সোমবার মধ্যরাতের পর থেকেই এই আদেশ কার্যকর হবে। এই বিধিনিষেধের মধ্যে ৩ টি বিষয় উল্লেখযোগ্য যেমন,

* এখন থেকে প্রায় সর্বত্রই মাস্ক পড়া বাধ্যতামূলক।

* রাত ১ টা থেকে ভোর পর্যন্ত কারফিউ অর্থাৎ কোন জরুরী প্রয়োজন ছাড়া বাহিরে বের হওয়া যাবে না। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কঠোর পুলিশি তৎপরতা ও জরিমানার আভাস দিয়েছেন। (কারফিউ এর সময়সীমা বলা হয়েছে রাত ১ টা থেকে ভোর পর্যন্ত। তাই ধরে নেয়া যায় সকাল ৬ টা পর্যন্ত)

* ব্যক্তিগত অনুষ্ঠানের জন্য সর্বোচ্চ ১০ জন অতিথির (ইন্ডোর ইভেন্ট) অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

আজ অস্ট্রিয়ার সরকার প্রধান চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জের নেতৃত্বে মন্ত্রিপরিষদের এক বৈঠকের পর বেলা ২ টায় এই সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জ, ভাইস চ্যান্সেলর ভার্নার কোগলার, স্বাস্থ্যমন্ত্রী রুডল্ফ আনস্কোবার এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কার্ল নেহামার। সেবাস্তিয়ান কুর্জ বলেন,আমরা আশা করছি এই সমস্ত বিধিনিষেধ যথাযথভাবে পালন করতে পারলে আমাদের দেশে সম্ভাব্য দ্বিতীয় লকডাউনটি প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কার্ল নেহামার কিছুটা হুমকির সুরে বলেন রাত ১ টার পর কারফিউ কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হবে। অর্থাৎ রাত ১ টার অপ্রয়োজনে বাহিরে ঘোরাঘুরি, হোটেল,রেস্টুরেন্ট ,বার,লোকাল বা ডিসকো খোলা থাকলে গ্রেফতার ও জরিমানা (€১,৫০০ ইউরো) করা হতে পারে। মন্ত্রী আরও বলেন, “দুর্ভাগ্যক্রমে, ভাইরাসটি আমাদের মাঝে পুনরায় অতি দ্রুত গতিতে ফিরে এসেছে। কাজেই পূর্বের মতো সম্মিলিত চেষ্টার মাধ্যমে এর মোকাবেলা করতে হবে।

সরকারের উপ প্রধান ও খেলাধূলা বিষয়ক মন্ত্রী ভাইস চ্যান্সেলর ভার্নার কোগলার বলেন যে,যেহেতু ফূটবল লীগ সবেমাত্র শুরু হয়েছে তাই স্টেডিয়ামে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ইন্ডোর ও আইটডোর স্টেডিয়ামে যথক্রমে ১,৫০০ থেকে ৩,০০০ পর্যন্ত দর্শকের স্টেডিয়ামে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী রুডল্ফ আনস্কোবার বলেন, এখন থেকে আমাদেরকে বাহিরে খোলা মার্কেট সহ প্রায় সর্বত্রই মাস্ক পড়তে হবে। রেস্টুরেন্টে এখন থেকে এক টেবিলে ১০ জনের বেশী বসতে পারবে না। ওয়েটারদের মাস্ক পড়া নিয়ম পুনরায় বাধ্যতামূলক করা হয়েছে এবং অতিথিদের টেবিলে বসার পূর্ব পর্যন্ত মাস্ক পড়া বাধ্যতামূলক।

সরকার প্রধান সেবাস্তিয়ান কুর্জ তার বক্তব্যে আরও বলেন প্রার্থনার জন্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানকে,শেষকৃত্য, জানাজা বা ধর্মীয় অন্যান্য অনুষ্ঠান সর্বাধিক ১০ ব্যক্তির সীমাবদ্ধতা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। তবে মাস্ক ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার ব্যবস্থা করতে হবে।

আজ অস্ট্রিয়ায় করোনায় নতুন করে সংক্রমণ সনাক্ত হয়েছে ৭৮০ জন। তবে আজ কেহ করোনায় মৃত্যুবরণ করেন নি। এর মধ্যে রাজধানী ভিয়েনাতেই সংক্রমিত হয়েছেন ৩৬৬ জন। এই পর্যন্ত অস্ট্রিয়ার মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩৫,৮৫৩ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৭৫৮ জন। করোনার থেকে আরোগ্য লাভ করেছেন ২৮,০৪৪ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৭,০৫১ জন। এর মধ্যে ক্রিটিক্যাল অবস্থায় আইসিইউতে আছেন ৫৫ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ৩১৯ জন। বাকীরা নিজ নিজ বাসায় আইসোলেশনে আছেন।

 

 8,382 total views,  1 views today