অস্ট্রিয়ায় করোনার সক্রিয় রোগী ৮,১০০ এবং হোম কোয়ারেন্টাইনে ২০,০০০ জন

আগামীকাল থেকে করোনার নতুন বিধিনিষেধ কার্যকর !

 অন লাইন ডেস্ক থেকে, কবির আহমেদঃ সপ্তাহের শেষে করোনার টেস্ট কিছুটা কম হয় বলে আজ অস্ট্রিয়ায় নতুন করোনায় সংক্রমিত সনাক্ত রেকর্ড করা হয়েছে ৬২১ জন। এর মধ্যে রাজধানী ভিয়েনাতেই সংক্রমিত হয়েছেন ৩১৯ জন এবং ১ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। অস্ট্রিয়ান সংবাদ সংস্থার খবরে বলা হয়েছে আজ সকাল পর্যন্ত করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৮,১০০ জন রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে। এবং সমগ্র দেশে বর্তমানে ২০,০০০ হাজার মানুষ কোয়ারেন্টাইনে আছেন।

আজ অস্ট্রিয়ার অন্যান্য রাজ্যের সংক্রমণ নিম্নরুপ- Burgenland: ৮ জন, Kärnten: ১৭ জন, Niederösterreich: ৯৪ জন, Oberösterreich:৪৯ জন, Salzburg: ২১ জন, Steiermark:১৩ জন, Tirol: ৬২ জন, এবং Vorarlberg: এ ৩৮ জন।

সংবাদ সংস্থা এপিএ এর খবরে বলা হয়েছে ভিয়েনার ১০ নাম্বার ডিস্ট্রিক্টের Kaiser Franz Josef Spital এর ৪ নাম্বার প্যাভিলনে স্থাপিত করোনা ইউনিটে রোগীর সংখ্যা ১৮০ জন হওয়ায় আপাতত নতুন রোগী ভর্তি করা স্থগিত রেখেছেন।

আজ রবিবার অস্ট্রিয়ার সরকার প্রধান চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জ অস্ট্রিয়ার অন লাইন পোর্টাল Oeb24 এর সাথে এক সাক্ষাৎকারে বলেন,আমি আশা করছি করোনার সংক্রমণ আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাহিরে যাবে না। বর্তমান করোনার সংক্রমণ নতুন করে বৃদ্ধিতে তার প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি বলেন,”এটি সত্য যে আমি গ্রীষ্মের শেষের পর থেকে করোনার বিধিনিষেধ কঠোর করতে চেয়েছিলাম কিন্ত যেহেতু আমার একার পক্ষে সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব ছিল না তাই হয়ে উঠেনি। তিনি কোয়ালিশনের শরীক দল গ্রীনদের সাথে স্পষ্টতই মতামতের ভিন্নতার কথা উল্লেখ করেছেন। কুর্জ ব্যবস্থা গ্রহণের বিলম্বের জন্য সমালোচনাও করেছেন। তিনি আরও বলেন,”আমার ধারণা আছে যে কেউ কেউ পরিস্থিতিটিকে অবমূল্যায়ন করেছিলেন এবং ভাল সময়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগুলি কার্যকর করতে পারেননি,” কুর্জ ফেডারেল রাজধানীর প্রসঙ্গে বলেন “আমি আশা করি ভিয়েনার পরিস্থিতি হাতছাড়া হবে না। তদুপরি, চ্যান্সেলর আবারও বলেন যে, ২০২১ সালের গ্রীষ্মে পরিস্থিতি আবার “স্বাভাবিক” হতে পারে বলে তিনি আশা করছেন।

আগামীকাল কাল থেকে অস্ট্রিয়ায় করোনার নতুন বিধিনিষেধ কার্যকর করা হচ্ছে। এই বিধিনিষেধের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ৩ টি বিষয় হল- * এখন থেকে প্রায় সর্বত্রই মাস্ক পড়া বাধ্যতামূলক।

* রাত ১ টা থেকে ভোর পর্যন্ত কারফিউ অর্থাৎ কোন জরুরী প্রয়োজন ছাড়া বাহিরে বের হওয়া যাবে না। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কঠোর পুলিশি তৎপরতা ও জরিমানার আভাস দিয়েছেন। (কারফিউ এর সময়সীমা বলা হয়েছে রাত ১ টা থেকে ভোর পর্যন্ত। তাই ধরে নেয়া যায় সকাল ৬ টা পর্যন্ত)

* ব্যক্তিগত অনুষ্ঠানের জন্য সর্বোচ্চ ১০ জন অতিথির (ইন্ডোর ইভেন্ট) বেশী হতে পারবে না।

অস্ট্রিয়ায় করোনায় এই পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩৮,০৯৫ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৭৬৬ জন।করোনার থেকে আরোগ্য লাভ করেছেন ২৯,২২৯ জন। বর্তমানে আইসিইউতে ক্রিটিক্যাল অবস্থায় আছেন ৬৮ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন ৩৪১ জন।

 8,192 total views,  1 views today