অস্ট্রিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের নতুন রাস্ট্রদূতের পরিচয় পত্র পেশ

নিউজ ডেস্ক থেকে,কবির আহমেদঃ অস্ট্রিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের নতুন রাস্ট্রদূত  মুহাম্মদ আবদুল মুহিত অস্ট্রিয়ার “প্রেসিডেন্ট প্রাসাদ হোফবুর্গে” অস্ট্রিয়ার প্রেসিডেন্ট আলেকজান্ডার ভান ডের বেলেনের নিকট তার পরিচয় পত্র পেশ করেছেন। এই সময় রাস্ট্রদূতের সাথে বাংলাদেশ দূতাবাসের উপ-প্রধান রাহাত বিন জামানও উপস্থিত ছিলেন। মোঃ আব্দুল মুহিত বিদায়ী রাস্ট্রদূত মোঃ আবু জাফরের স্থলাভিসিক্ত হলেন।                          

২০১৩ সালে ভিয়েনায় বাংলাদেশের দূতাবাস স্থাপিত হলে রাস্ট্রদূত মোঃ আবু জাফর প্রথম রাস্ট্রদূত হিসাবে যোগদান করেছিলেন। এম আবু জাফর  বর্তমানে সংযুক্ত আরব আমিরাতে বাংলাদেশের রাস্ট্রদূত হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। নতুন রাস্ট্রদূত মুহিত ভিয়েনায় রাস্ট্রদূত নিযুক্ত হওয়ার পূর্বে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন পদে এবং কয়েকটি দেশে বাংলাদেশ মিশনেও কর্মরত ছিলেন।

পরিচয় পত্র উপস্থাপনের পর অস্ট্রিয়ান ফেডারেল রাষ্ট্রপতি ভান ডার বেলেনের সাথে নতুন রাস্ট্রদূতের এক সংক্ষিপ্ত বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। প্রেসিডেন্ট ভান ডের বেলেন অস্ট্রিয়া সফরকালে ভিয়েনায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে তার সাক্ষাতের কথা স্মরণ করার সময় অস্ট্রিয়ান রাষ্ট্রপতি বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীকে তার উষ্ণ শুভেচ্ছা জানান। তারা দ্বিপক্ষীয় আগ্রহ এবং ব্যস্ততার মূল বিষয়গুলি নিয়ে আলোচনা করেন। অস্ট্রিয়ান রাষ্ট্রপতি আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন যে, অস্ট্রিয়া এবং বাংলাদেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আগামী দিনগুলিতে আরো জোরদার হবে।

রাষ্ট্রদূত মুহিত মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০২১ ও ২০৪৪ সম্পর্কে, বাংলাদেশকে ২০২৪ সালে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদায় উন্নীতকরণ এবং জলবায়ু পরিবর্তনের গ্রহকালীন জরুরী অবস্থার সময় ২০৩০ সালে এসডিজি অর্জনের জন্য দেশটির প্রচেষ্টা সম্পর্কে ফেডারেল রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করেন। উভয়েই বর্তমানে বৈশ্বিক মহামারী কোভিড-১৯ কারনে বৈশ্বিক জলবায়ু সম্পর্কিত কর্মকাণ্ড বাধাগ্রস্ত হচ্ছে বলে একমত পোষণ করেন। তাছাড়াও রাষ্ট্রদূত”নেতৃবৃন্দ” প্রকৃতির অঙ্গীকারের ভার্চুয়াল প্রবর্তন ‘(নিউইয়র্ক, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০, যা বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীও স্বাক্ষরকারী) এবং একটি সবুজ বিপ্লবকে অগ্রাধিকার দেওয়ার ক্ষেত্রে অস্ট্রিয়া এবং ইইউর ভূমিকায় গভীর প্রশংসা প্রকাশ করেন।

রাষ্ট্রদূত মুহিত নতুনভাবে প্রবর্তিত উদ্যোগের অধীনে অস্ট্রিয়া এবং ইইউর সাথে গভীরভাবে জড়িত থাকার জন্য বাংলাদেশের তৎপরতা বৃদ্ধির কথা জানান। যা কোভিড-পরবর্তী বিশ্ব পুনরুদ্ধারের পরিকল্পনাগুলির কেন্দ্রবিন্দুতে বাস্তুসংস্থান এবং জলবায়ু সংরক্ষণ করবে। বৈঠকে রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়েও আলোচনা হয়। আলোচনাকালে রাষ্ট্রদূত মুহিত অস্ট্রিয়ার রাষ্ট্রপতিকে জানান যে, বাংলাদেশ বর্তমানে ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছে। তিনি রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের আরও কার্যকর ভূমিকা নেওয়ার আহ্বান জানান।

বাংলাদেশের মাননীয় রাষ্ট্রপতির পক্ষে, রাষ্ট্রদূত মুহিত নিকটতম ভবিষ্যতে পারস্পরিক সুবিধাজনক সময়ে অস্ট্রিয়ার ফেডারেল রাষ্ট্রপতিকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান। বৈঠকের পরে রাষ্ট্রদূত মুহিতকে অস্ট্রিয়ার সশস্ত্র বাহিনীর একটি চৌকস দল গার্ড অব অনার প্রদান করেন।

 9,054 total views,  1 views today