জার্মানি, ইতালি এবং অস্ট্রিয়ার কয়েকটি অঞ্চলকে করোনার ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করেছে সুইজারল্যান্ড

 আন্তর্জাতিক ডেস্ক থেকে,কবির আহমেদঃ জার্মানি, ইতালি এবং অস্ট্রিয়ার পাশাপাশি আরও সাতটি দেশের বিভিন্ন শহর ও অঞ্চল থেকে আগতদের দুই সপ্তাহের কোয়ারেন্টাইন ঘোষণা করেছে সুইজারল্যান্ড ।এই ঝুঁকিপূর্ণ তালিকায় জার্মানির দুটি বৃহত্তম বড় শহর বার্লিন ও হামবুর্গও স্থান পেয়েছে। সুইজারল্যান্ড জানায়,তারা ‘উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ’ দেশ ও অঞ্চলগুলির তালিকা বাড়িয়েছে, সেখান থেকে আগতদেরকে পৃথকীকরণের প্রয়োজন হবে। এই অঞ্চল থেকে আগতদের জন্য দুই সপ্তাহের এই কোয়ারেন্টাইন সোমবার ১২ অক্টোবর ২০২০ থেকে কার্যকর করা হয়েছে।                               

জার্মানি, অস্ট্রিয়া এবং ইতালির বাহিরে অন্যান্য দেশ সমূহ হচ্ছে জর্জিয়া, ইরান, জর্ডান, কানাডা, রাশিয়া, স্লোভাকিয়া এবং তিউনিসিয়া। তবে বলিভিয়া, ডোমিনিকান প্রজাতন্ত্র, নামিবিয়া, সুরিনাম এবং ত্রিনিদাদ ও টোবাগো থেকে বিধিনিষেধ প্রত্যাহার করা হয়েছে।

ইতালীর অঞ্চল সমূহের মধ্যে ক্যাম্পানিয়া – যার মধ্যে নেপলস শহর রয়েছে – সার্ডিনিয়া এবং ভেনেটোর অঞ্চলও এই তালিকায় যুক্ত হয়েছে। ইতালির লিগুরিয়া অঞ্চলকে ২৮ সেপ্টেম্বর থেকে ঝুঁকিপূর্ণ তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

অস্ট্রিয়ার মধ্যে এই নিষেধাজ্ঞায় রয়েছে ভিয়েনা, বুর্গেনল্যান্ড,সালজবুর্গ,উচ্চ অস্ট্রিয়া এবং লোয়ার অস্ট্রিয়া। অবশ্য সুইস স্বাস্থ্যমন্ত্রী আলাইন বার্সেট কার্যকরভাবে ইঙ্গিত দিয়েছেন যে সীমান্তের উভয় পক্ষের বিস্তৃত অর্থনৈতিক ও সামাজিক সংযোগের কারণে সীমান্ত অঞ্চলগুলিতে কর্মরত লোকজনের জন্য কোয়ারেন্টাইনের প্রয়োজন পড়বে না। উল্লেখ্য সীমান্তবর্তী রাজ্য সমূহ থেকে অনেক অস্ট্রিয়ান প্রতিদিন সুইজারল্যান্ড যেয়ে কাজ করে থাকেন।

এইদিকে আজ অস্ট্রিয়ায় নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৯৭৯ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৪ জন। আজ রাজধানী ভিয়েনায় সংক্রমিত সনাক্ত হয়েছেন ৩২৭ জন। অস্ট্রিয়ায় এই পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫৬,২৯৮ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ৮৫৫ জন। করোনার থেকে আরোগ্য লাভ করেছেন ৪৪,০৬৫ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ১১,৩৭৮ জন। এর মধ্যে ক্রিটিক্যাল অবস্থায় আছেন ৯৭ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ৫১৬ জন। অন্যান্যরা নিজ নিজ বাসায় আইসোলেশনে আছেন।

 10,272 total views,  1 views today