অস্ট্রিয়ায় করোনার নতুন বিধিনিষেধ! ব্যক্তিগত অনুষ্ঠানে ৬ জনের বেশী উপস্থিতি নিষিদ্ধ ! রাত ১০ টা থেকে পরিকল্পিত কারফিউ আপাতত প্রবর্তন করা হয়নি

করোনার সংক্রমণ এইভাবে অব্যাহত থাকলে ডিসেম্বর মাসে দৈনিক সংক্রমণ ৬,০০০ হাজার – সেবাস্তিয়ান কুর্জ

 অন লাইন ডেস্ক থেকে,কবির আহমেদঃ আজ সকালে রাজধানী ভিয়েনায় অস্ট্রিয়ান সরকার এবং বিভিন্ন রাজ্যের গভর্নরেদর মধ্যে বর্তমান করোনা পরিস্থিতি নিয়ে এক বিশেষ ভিডিও কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভিডিও কনফারেন্সের পর অস্ট্রিয়ার সরকার প্রধান চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জ, উপ প্রধান ভার্নার কোগলার, স্বাস্থ্যমন্ত্রী রুডল্ফ আনস্কোবার এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কার্ল নেহামার এক সাংবাদিক সম্মেলনে বৈঠক সম্পর্কে প্রেসব্রিফিং করেন এবং উপস্থিত সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। 

প্রেস ব্রিফিংয়ের প্রথমেই সরকার প্রধান চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জ বলেন,আমাদের দেশে করোনার সংক্রমণ পুনরায় প্রতিদিন ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে তাই আমাদের সকলকে পূর্বের মতো সম্মিলিত ভাবে কাজ করতে হবে এবং সরকারের দিক নির্দেশনা যথাযথ ভাবে মেনে চলতে হবে। এখন থেকে করোনার বিধিনিষেধের মধ্যে ৩ টি জিনিস খুবই গুরুত্ব সরকারে এবং অগ্রাধিকার ভিত্তিতে মেনে চলতে হবে। প্রথমত নাক ও মুখের সুরক্ষা বন্ধনী (মাস্ক) পরিধান করা,একে অন্যের থেকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলা এবং ব্যক্তিগত ইভেন্ট বা অনুষ্ঠানে সর্বোচ্চ ৬ জনের বেশী মানুষ উপস্থিত বা অংশগ্রহণ না করা।

তিনি আরও জানান সংক্রমণ বৃদ্ধির ফলে আমরা আমাদের খেলাধুলা,রাজ্য অপেরা সহ বিভিন্ন পেশাগত ইভেন্টেও কিছুটা সীমাবদ্ধতা আরোপ করেছি। স্টেডিয়ামে বা আউটডোরে মাস্ক ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সর্বোচ্চ ১,৫০০ শত দর্শক এবং ইনডোর স্টেডিয়ামে সর্বোচ্চ ১,০০০ দর্শকের বসে খেলা দেখার অনুমতি দেওয়া হয়েছে তবে সকল প্রকার খাবার ও পানীয় পান করা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

নির্ধারিত আসনবিহীন সামাজিক অনুষ্ঠানে আভ্যন্তরীণ ইভেন্টগুলিতে সর্বোচ্চ ছয় জন এবং বাহিরের ইভেন্টে সর্বোচ্চ বারোজন প্রাপ্ত বয়স্কদের একত্রিত হওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। উদাহরণস্বরূপ জিম,যোগ ব্যায়াম,শেষকৃত্য অনুষ্ঠান বা জানাজার নামাজ ও দাফন ইত্যাদি। কুর্জ বর্তমানে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ সমগ্র ইউরোপের জন্য একটি চ্যালেঞ্জিং বলে অভিহিত করেছেন। অস্ট্রিয়ার পরিস্থিতি সম্পর্কে চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জ বলেন সংক্রমণ রোগ বিশেষজ্ঞদের পরিসংখ্যান অনুযায়ী দেশে সংক্রমণের এই ধারা অব্যাহত থাকলে আগামী ডিসেম্বরে মাসে আমাদের প্রতিদিনের সংক্রমণ গিয়ে দাঁড়াবে ৬,০০০ হাজারে।

এছাড়াও, তিনি জনগণের উদ্দেশ্যে এক অনুরোধে জানান, বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠানে যেমন ১ নভেম্বর মৃতদের কবর পরিদর্শন,হ্যালোইন এবং অন্যান্য সামাজিক দিবসে এই বৎসর কেবলমাত্র আপনাদের নিজের পরিবারের মানুষের সাথে উদযাপন করা উচিত।

আগামী শুক্রবার থেকে রেস্টুরেন্ট ও অন্যান্য খাবারের দোকানে যেসব বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে তারতম্যে এক টেবিলে ৬ জনের বেশী বসতে পারবে না। একসাথে রেস্টুরেন্টে ৫০ জনের বেশী মানুষ বসতে পারবে না।

বৃদ্ধাশ্রম ও বয়স্ক লোকদের নার্সিংহোমে শারীরিক নিরাপত্তা সুরক্ষা নিশ্চিত করা এবং সমস্ত সাধারণ ক্ষেত্রে এমএনএস মাস্ক বাধ্যতামূলক পরিধান করা। নতুন এবং পুনরায় ভর্তি বাসিন্দাদের জন্য করোনার পরীক্ষা করা। স্টাফদের ও নিয়মিত স্ক্রিনিংয়ের জন্য স্বাস্থ্য পরীক্ষা, প্রাক-নিবন্ধকরণ এবং দর্শনার্থীদের জন্য এমএনএস বাধ্যতামূলক সহ সকল প্রকার স্বাস্থ্যবিধি যথাযথ ভাবে মেনে চলার উপর কড়া নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও জানান,ফেডারেল রাজ্যগুলিতে সংক্রমণের পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে আঞ্চলিকভাবে বিধিনিষেধ আরোপ করবেন স্থানীয় প্রশাসন। উদাহরণস্বরূপ যেমন, লাল ঘোষিত Salzburg রাজ্যের Hellein জেলার Kuchl শহরটিকে স্থানীয় প্রশাসন গত শনিবার থেকে সম্পূর্ণ লকডাউন করে রেখেছেন। দেশে লকডাউন দেওয়া হবে কিনা এক প্রশ্নের জবাবে চ্যান্সেলর সেবাস্তিয়ান কুর্জ বলেন, আমাদের দেশে সংক্রমণ বাড়লেও পরিস্থিতি আমাদের নিয়ন্ত্রণে আছে। আমাদের হাসপাতাল ও আইসিইউ এখনও পর্যাপ্ত খালি রহিয়াছে। যদি অবস্থা নিয়ন্ত্রণের বাহিরে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দেয় তাহলে অবশ্যই আমাদের লকডাউন দিতে হবে।

এদিকে আজ অস্ট্রিয়ায় নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ১,১২১ জন এবং মৃত্যুবরণ করেছেন ১১ জন। করোনার থেকে আরোগ্য লাভ করেছেন ৫০,৬০০ জন। বর্তমানে করোনার সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ১৪,৬৬৪ জন। এর মধ্যে আইসিইউতে আছেন ১৪৫ জন এবং হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন ৭৯৯ জন। বাকীরা নিজ নিজ বাসায় আইসোলেশনে আছেন

 

 10,723 total views,  1 views today