কানাডায় মধ্যপ্রাচ্যের তাপমাত্রা ৪৯,৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস,প্রচন্ড গরমে মৃত্যু শতাধিক

গত ৮৪ বছরে এত গরম দেখেনি কানাডা, ইতিহাসের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে উত্তর আমেরিকার দেশ কানাডায়

 আন্তর্জাতিক ডেস্ক থেকে,কবির আহমেদঃ কানাডা থেকে রয়টার্স সহ সকল আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছেন বর্তমানে দেশটিতে মধ্যপ্রাচ্যের আবহাওয়া বিরাজ করছে। সংবাদ সংস্থার খবর অনুযায়ী।চলতি সপ্তাহজুড়ে কানাডার পশ্চিমাঞ্চল ও যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের উপকূলীয় এলাকার মানুষ তীব্র দাবদাহের মুখোমুখি হয়েছে। প্রতিদিনই আগের রেকর্ড ভাঙছে তাপমাত্রা। এ ধারাবাহিকতায় স্থানীয় সময় গতকাল মঙ্গলবার সর্বকালের সর্বোচ্চ তাপমাত্রার দেখা পেয়েছে কানাডাবাসী। বাড়তি তাপমাত্রা ও তীব্র গরমের প্রভাব পড়েছে জনজীবনে। কানাডায় দাবদাহে অন্তত ১০০ জনের মৃত্যুর খবর দিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম।

রয়্যাল কানাডিয়ান মাউন্টেড পুলিশের (আরসিএমপি) এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, তীব্র গরমে ব্রিটিশ কলাম্বিয়া রাজ্যের জনবহুল শহর ভ্যাঙ্কুভার ও পাশের বার্নাবি শহরে বেশির ভাগ মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। নিহত ব্যক্তিদের বেশির ভাগই বয়স্ক। আরসিএমপির করপোরাল মাইকেল কালাঞ্জ বলেন, মৃত্যুর এসব ঘটনায় তদন্ত করা হচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, গরমের কারণে অসুস্থ হয়ে তাঁরা মারা গেছেন।

ব্রিটিশ কলাম্বিয়া রাজ্যের একটি গ্রাম লুটন। গতকাল সেখানকার মানুষ বৈরী আবহাওয়ার চরম রূপ দেখেছে। দেশটির আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, এদিন বিকেলে লুটনে তাপমাত্রা উঠেছিল ১২১ ডিগ্রি ফারেনহাইট বা ৪৯ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। কানাডার ইতিহাসে এটাই সর্বকালের সর্বোচ্চ তাপমাত্রার রেকর্ড। চলতি সপ্তাহের আগে কানাডায় তাপমাত্রা ৪৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস পার হয়নি। তিন দিন ধরেই লুটনে রেকর্ডভাঙা তাপমাত্রা বজায় রয়েছে।

শুধু ব্রিটিশ কলাম্বিয়া নয়, কানাডার মেরু অঞ্চল থেকে শুরু করে যুক্তরাষ্ট্রের অরিগন, ওয়াশিংটন অবধি তাপমাত্রা স্বাভাবিক সময়ের গড়ের তুলনায় বেশি রয়েছে। গতকাল যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন অঙ্গরাজ্যের সিয়াটলে তাপমাত্রা ১০৮ ডিগ্রি ফারেনহাইটে উঠেছিল। আর অরিগন অঙ্গরাজ্যের বৃহত্তম শহর পোর্টল্যান্ডের তাপমাত্রা ছিল আরও বেশি। গতকাল সেখানে ১১৫ ডিগ্রি ফারেনহাইট তাপমাত্রা রেকর্ড করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ওয়েদার সার্ভিস (এনডব্লিউএস)। ১৯৪০-এর দশকের পরে যুক্তরাষ্ট্রের এ অঞ্চলে সবচেয়ে বেশি গরম পড়েছে এবার।

সিয়াটলের স্থানীয় এক ব্যক্তি সংবাদ সংস্থা এএফপিকে বলেন, তাপমাত্রা ৬০ থেকে ৭০ ডিগ্রি ফারেনহাইটে উঠলেই ওই দিনকে উষ্ণ ধরা হয়। সবাই টি-শার্ট আর শর্টস পরে ঘরের বাইরে বেরিয়ে আসে। সেখানে এখন দিনের তাপমাত্রা ১০০ ডিগ্রি ফারেনহাইট ছাড়িয়েছে।

কানাডার পশ্চিমাঞ্চল ও যুক্তরাষ্ট্রের উত্তর- পশ্চিমাঞ্চলের উপকূলীয় এলাকার মানুষ সাধারণত তুমুল তুষারপাতের সঙ্গে পরিচিত। তীব্র গরমের সঙ্গে অভ্যস্ত নয় তারা। এখন জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে মেরু এলাকাগুলোয়ও রেকর্ডভাঙা গরম দেখা যাচ্ছে। এ বিষয়ে এনভায়রনমেন্ট কানাডা নামক সংস্থার জ্যেষ্ঠ জলবায়ুবিদ ডেভিড ফিলিপস বলেন, ‘কানাডা বিশ্বের দ্বিতীয় শীতলতম ও তুষারপাত প্রবণ দেশ। আমরা তুষারঝড়ের সঙ্গে পরিচিত। এমন তীব্র গরমের সঙ্গে অভ্যস্ত নই আমরা।’

গরমের কারণে কানাডা-যুক্তরাষ্ট্রের সীমান্ত এলাকার মানুষ ফ্যান ও বহনযোগ্য শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্র কিনতে দোকানে ভিড় করছে। গরম থেকে স্বস্তি দিতে ভ্যাঙ্কুভারে সড়কের পাশে কৃত্রিম ফোয়ারা বসিয়েছে

স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। স্থানীয় লোকজনের অনেককেই ঘরবন্দী থাকতে বাধ্য হচ্ছে। যাদের বাড়িতে শীতাতপ নিয়ন্ত্রণব্যবস্থা নেই, তাদের অনেককেই গাড়িতে কিংবা বাড়ির বাইরে রাত কাটাতে বাধ্য হয়েছে। খোলা হয়েছে আশ্রয়কেন্দ্র।

সংবাদ সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছেন কানাডার ব্রিটিশ কলাম্বিয়া, অ্যালবার্টা, মেনিটোবা, নর্থওয়েস্ট টেরিটোরিসহ দেশটির বিস্তীর্ণ অঞ্চলে সপ্তাহজুড়েই ভয়াবহ দাবদাহ বয়ে যেতে পারে বলে সতর্কতা জারি করেছে এনভায়রনমেন্ট কানাডা নামে একটি সংস্থা। যুক্তরাষ্ট্রের উপকূলীয় এলাকায়ও তাপমাত্রা সর্বকালের রেকর্ড ভাঙতে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছে সেখানকার ন্যাশনাল ওয়েদার সার্ভিস সেন্টার। তাদের

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, পুরো অঞ্চলে ‘হিট ডোম’ তৈরি হয়েছে, যা সেখানকার মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ঝুঁকি তৈরি করেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের পোর্টল্যান্ড এবং সিয়াটলে ১৯৪০এর দশকের পর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ওয়েদার সার্ভিসের মতে, অরিগন রাজ্যের পোর্টল্যাণ্ডে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪৬.১ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সিয়াটলে ৪২.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। এই তাপমাত্রায় বিদ্যুতের ক্যাবল গলে যাওয়ার জন্য যথেষ্ট। এর ফলে রোববার পোর্টল্যান্ড স্ট্রিটকার সার্ভিস বন্ধ হয়ে যায়।

ওয়াশিংটনের স্পোকানেতে বিদ্যুতে ব্লাকআউট করা হচ্ছে। কারণ, সেখানকার অধিবাসীদের এসি চালানো বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে বিদ্যুতের চাহিদা আকাশচুম্বী। সিয়াটলের একজন অধিবাসী বলেছেন, তার কাছে ওয়াশিংটন রাজ্যকে মনে হচ্ছে মরুভূমির মতো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *